আপডেট ৫ ঘন্টা আগে ঢাকা, ১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং, ২রা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৭শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"Bold","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ আজকাল

Share Button

৯২ সালের যৌথ ঘোষণার ভিত্তিতে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিবে মিয়ানমার

| ১৬:০৫, অক্টোবর ৩, ২০১৭

কূটনৈতিক রিপোর্টা | ৩ অক্টোবর ২০১৭, মঙ্গলবার

রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযানের মুখে পালিয়ে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার (প্রত্যাবাসন) প্রক্রিয়া ১৯৯২ সালের ঘোষণাকে ভিত্তি ধরেই এগিয়ে নিতে চায় মিয়ানমার। মঙ্গলবার দেশটির স্টেট কাউন্সেলরের কার্যালয়ের এক বিবৃতিতে এমনটাই জানানো হয়েছে। সোমবার স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চির কার্যালয়ের মন্ত্রী চাও থিন সোয়ের ঢাকা সফর এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠকের পর এ বিবৃতি এলো।

 

 

১৯৯২ সালের দুই দেশের মধ্যেকার যৌথ ঘোষণায় বলা হয়েছে,  বাংলাদেশে নিবন্ধিত রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের বৈধ কাগজপত্রসহ ফিরতে পারবে রাখাইনে। রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনায় ২৪ ঘন্টার এক ঝটিকা সফরে রোববার মধ্যরাতে ঢাকায় আসেন মিয়ানমারের মন্ত্রী সোয়ে। সোমবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। ওই বৈঠকের পর ঢাকায় কোনও মন্তব্য না করলেও নেপি’ডতে ফেরার পর স্টেট কাউন্সেলরের কার্যালয় মন্ত্রীর সফর নিয়ে থেকে আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দেয়া হয়।

 

 

বিবৃতিতে বলা হয়, স্টেট কাউন্সেলর  অং সান সু চির ১৯ সেপ্টেম্বর দেওয়া প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেছেন তার দফতরের মন্ত্রী সোয়ে। সু চির প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী,  মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের যাচাই ও প্রত্যাবাসনে প্রস্তাব রয়েছে। ১৯৯২ সালের ২৮ এপ্রিল বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের যৌথ ঘোষণা অনুসারে তাদের ফিরিয়ে নেওয়া হবে। এই যৌথ ঘোষণা অনুসারে ১৯৯২ থেকে ২০০৫ সালের জুলাই পর্যন্ত ২ লাখ ৩৬ হাজার ৪৯৫ জনকে বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে। বৈঠকে  ২০০০ সালের ১৪ জানুয়ারি ইয়াঙ্গুনে অনুষ্ঠিত দুই দেশের সিনিয়র কর্মকর্তাদের মধ্যকার বৈঠকে সম্পাদিত চুক্তির প্রসঙ্গটিও তুলে ধরেন।

 

 

এতে আরও বলা হয়, উভয় দেশের স্বার্থের কথা বিবেচনায় রেখে দ্বিপক্ষীয়ভাবে দুই দেশের মধ্যে এই ইস্যুগুলো বন্ধুত্বপূর্ণ উপায়ে সমাধান করা সম্ভব। বিবৃতি অনুযায়ী, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী উভয় দেশের ঐতিহ্যগত বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখার কথা পুনর্ব্যক্ত করেছেন। তিনি আরসাকে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের সাধারণ শত্রু বলে উল্লেখ করে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতির কথাও জানিয়েছেন। বিবৃতিতে বলা হয়, ঢাকার বৈঠকের শেষ দিকে মিয়ানমারের মন্ত্রী বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে নেপিডো সফরের আমন্ত্রণ জানান। সীমান্ত সুরক্ষা, ১৯৯২ সালের এপ্রিলের যৌথ বিবৃতি অনুসারে যেসব রোহিঙ্গা মিয়ানমার ফিরতে চায়, তাদের যাচাইকরণ বিষয়ে পদক্ষেপ চূড়ান্ত করতে বাংলাদেশের মন্ত্রীকে এই সফরের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন।

 

 

বৈঠকের পর একটি মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেন মিয়ানমারের মন্ত্রী। এতে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও উপস্থিত ছিলেন। মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে একটি আমন্ত্রণপত্র তুলে দেন। এতে বিস্তারিত আলোচনার জন্য বাংলাদেশের মন্ত্রীকে মিয়ানমার সফরের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এতে আর বলা হয়েছে,  আলোচনা বন্ধুত্বপূর্ণ ও উষ্ণ ছিল। এদিকে, বৈঠক শেষে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ‘রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে মিয়ানমার। এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য দুই পক্ষ একটি জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনে সম্মত হয়েছে।

 

 

এই জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপে কারা থাকবেন তা দুই পক্ষ মিলে ঠিক করবে।’ তবে এটি কবে নাগাদ হবে সেটি এখনও ঠিক হয়নি, তবে দ্রুত হবে বলেও জানিয়েছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। মিয়ানমারের বিবৃতিতে রোহিঙ্গাদের ফেরতের কথা বলা হলেও সেখানে জয়েন্ট ওয়াকিং গ্রুগ গঠনের কোন উল্লেখ নেই। বিবৃতিতে বলা হয়, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর আমন্ত্রণে স্টেট কাউন্সেলরের কার্যালয়ের মন্ত্রী সোয়ে ১-৩রা অক্টোবর ঢাকায় ছিলেন। তার সঙ্গে ছিলেন মিয়ানমার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী সচিব উ চাও জেয়ো। এদিকে অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক সংবাদমাধ্যম এবিসি নিউজ জানিয়েছে, পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে মাত্র ৫ হাজার ৮০০ জনের নিবন্ধন হয়েছে। তারাও সবাই রাখাইনে ফিরতে পারবে, এমন নয়। কেননা নিবন্ধিত হওয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে নাগরিকত্বের প্রমাণ থাকা ব্যক্তিরাই কেবল ফিরে যেতে পারবে। ফ্রন্টিয়ার মিয়ানমারের ২০১৫ সালের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী রাখাইনে তখন থাকা ১০ লাখ রোহিঙ্গার মধ্যে ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড (এনভিসি) পেয়েছিল মাত্র  ৭ হাজার ৫৪৮জন। এর বাইরে আর কোনও কাগজপত্রই রোহিঙ্গাদের নেই। তাই ৭ হাজার ৫৪৮ জনের বেশি মানুষের মিয়ানমারে ফেরার সুযোগ নেই। বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মতে, এই পর্যন্ত পালিয়ে আসার রোহিঙ্গার সংখ্যা প্রায় ৯ লাখ (নতুন-পুরান মিলে)। এরমধ্যে চার লাখ আগে থেকেই রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাস করছিল। আর চলতি বছরের ২৫ আগস্ট রাখাইনে সামরিক অভিযান শুরু হলে আরও ৫ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা পালিয়ে এসেছে।।

 

 

ঢাকায় মিয়ানমারের মন্ত্রীর বৈঠককালেও বর্মী বাহিনীর নির্যাতনে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের সীমান্ত পাড়িয়ে দিয়ে বাংলাদেশে আসা অব্যাহত ছিল। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রোহিঙ্গা অব্যাহত রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্র নিশ্চিত করেছে।

Comments are closed.







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!