আপডেট ৩ ঘন্টা আগে ঢাকা, ১৭ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং, ২রা কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৬শে মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"Bold","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ এক্সক্লুসিভ

Share Button

গ্র্যান্ট শাপসের টেরিজাকে উৎখাতের ষড়যন্ত্রঃব্রেক্সিট নেত্রী হিসেবে টেরিজা অনড়

| ২৩:০৯, অক্টোবর ৬, ২০১৭

লন্ডন টাইমস নিউজ । টেরিজা মে । দলীয় নেতা । ষড়যন্ত্র । ০৭ অক্টোবর । ২০১৭ । সেলিম । tweet@salim1689 । রয়টার্স । আইটিভি । ইন্ডিপেন্ডেন্ট । গার্ডিয়ান

tm.jpg

টেরিজা  মে’কে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে উৎখাত করার জন্য সাবেক টোরি চেয়ারম্যান গ্র্যান্ট শাপের নেতৃত্বে একদল এমপি একাট্রা হচ্ছেন।  ষড়যন্ত্রকারীদের মধ্যে ৩০ এমপি রয়েছেন বলে দাবী করা হচ্ছে, কিন্তু গতকাল বিকেলে এক রিপর্টে জানা গেছে মাত্র তিন জন ছাড়া আর কেউই টেরিজার পদত্যাগ বা নেতৃত্ব থেকে সরে যাওয়া চান না ।

 

 

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে ব্রেক্সিট ইস্যু নিয়ে ব্রিটেনের আলোচনা এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছাচ্ছে। আর এমন সময় নিজ দলের সদস্যদের বিরোধিতার মুখে পড়েছেন টেরিজা মে। বিরোধিতাকারী এমপিদের ভাষ্যমতে, বুধবার দলীয় সম্মেলনে দেয়া ভাষণে চরমভাবে ব্যর্থ হওয়ায় দলের ওপর তার কর্তৃত্ব কমে গেছে।

 

Prankster Simon Bodkin hands Mrs May a fake P45 form as she delivers her keynote speech.

উল্লেখ্য, বুধবার দলীয় সম্মেলনে ভাষণ দিয়েছিলেন মে। তবে সেই ভাষণ সুষ্ঠুভাবে দিতে পারেননি তিনি। তার ভাষণ বারবার বাধাপ্রাপ্ত হয়- অসুস্থ থাকায় কিছুক্ষণ পরপর কাশতে থাকেন তিনি। পাশাপাশি একজন কমেডিয়ান  তার সঙ্গে রসিকতা করেও ভাষণে বিঘ্ন ঘটায়।

 

 

টোরি দলের সাবেক চেয়ারম্যান গ্র্যান্ট শ্যাপস বলেন, কনজার্ভেটিভ পার্টিকে পরবর্তী নির্বাচনে পরাজিত হতে না দেখতে চাইলে মে’র উচিত পদত্যাগ করা। শুক্রবার বিবিসি রেডিওকে তিনি বলেন, মে’র উচিত এই মুহূর্তে দলের নেতা ঠিক করার জন্য নির্বাচন ডাকা। মে নির্বাচনে ব্যর্থ হয়েছেন, মন্ত্রীপরিষদকে এক করতে ব্যর্থ হয়েছেন, দলীয় সম্মেলনে ব্যর্থ হয়েছেন- এতকিছুর পর আমি বলবো তার পতনের ইঙ্গিত ইতিমধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে ।

 

Boris Johnson, centre, looking at camera at the Conservative party conference

টেরিজা মে আগাম নির্বাচন ডেকেই ভুল করেছিলেন। তবে দলের জ্যেষ্ঠ মন্ত্রীরা অবশ্য তার পাশে রয়েছেন। তাদের ভাষ্যমতে, ব্রিটেনের এমন সংকটময় পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন অব্যাহত রাখা উচিত মে’র। বর্তমানে দলের মধ্যে এমন কেউ নেই যে তার জায়গায় ব্রিটেনকে ব্রেক্সিট ইস্যুতে এক করতে পারবে।

 

 

এদিকে, এখনও নিজ দলের কেউ তাকে উৎখাতের পক্ষে জনসম্মুখে কিছু বলেননি বা ইঙ্গিত দেন নি। তবে তার পদত্যাগের এমন সুপষ্ট দাবি তার দুর্বলতার গভীরতা প্রকাশ করে। এতদিন পর্যন্ত তিনি টিকে আছেন কারণ, ব্রেক্সিট ইস্যুতে তার চেয়ে ভালোভাবে ব্রিটিশদেরকে এক করতে পারবে দলের মধ্যে এমন উত্তরসূরির অভাব রয়েছে। পাশাপাশি অনেক কনজার্ভেটিভের আশঙ্কা, মে না থাকলে নির্বাচনে জয়ী হয়ে বিরোধীদলীয় লেবার নেতা জেরেমি করবিনই এখন ক্ষমতায় থাকতেন।

 

ষড়যন্ত্র কতটুকু সফলঃ

বুধবার দলীয় সম্মেলন  ছিলো তার জন্যে বিপর্যয়কারী। সম্মেলনে সুষ্ঠুভাবে পারফর্ম করতে পারলে দলের মধ্যে নিজের অবস্থান শক্ত করে তুলতে পারতেন তিনি। কিন্তু তার বদলে হয়েছে উল্টোটা। পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে গড়িয়েছে।

SHAPPS-EMBARRASSMENT

২০১২ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত দলের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী শ্যাপস বলেন, ওই দলীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার আগে থেকেই ষড়যন্ত্র চলছিল। আর এতে সংশ্লিষ্ট রয়েছে উভয় পক্ষের মানুষই- ব্রেক্সিট সমর্থনকারীরা ও ব্রেক্সিটের বিরোধীতাকারীরাও।

 

 

তিনি বলেন, ষড়যন্ত্রকারীরা তার জায়গায় কাকে বসানো যেতে পারে এ বিষয়ে একমত হতে পারছেন না। আনুষ্ঠানিকভাবে ‘লিডারশিপ চ্যালেঞ্জ’ করতে ৪৮ জন কনজারভেটিভ আইনপ্রণেতাকে দলের কথিত ১৯২২ কমিটির  চেয়ারম্যানের কাছে লিখিত আবেদন করতে হবে। কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান চার্লস ওয়াকার বিবিসি রেডিওকে বলেন, গ্র্যান্ট শ্যাপস এই অভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তিনি আরো  বলেন, গ্র্যান্টের অনেক প্রতিভা রয়েছে। তবে একটি জিনিস তার নেই সেটি হচ্ছে দলের মধ্যে তার কোন অনুসারী। তাই একেবারে সৎভাবে বলতে গেলে আমি মনে করি, এই ষড়যন্ত্র কয়েকদিনের মধ্যেই নাই হয়ে যাবে।

 

 

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, মে প্রধানমন্ত্রী থাকলে ব্রেক্সিট ইস্যুতে ব্রিটেনের পথ প্রদর্শক হবেন  ব্রিটিশ  ইতিহাসের সবচেয়ে দুর্বল নেতাদের একজন। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের কূটনীতিবিদ ও কর্মকর্তারা এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

 

ক্ষমতায় থাকা উচিত মে’র

দলের জ্যেষ্ঠ মন্ত্রীরাসহ অনেকেই মনে করেন ব্রেক্সিট ইস্যু সামলানোর জন্যে ক্ষমতায় বহাল থাকা উচিত মে’র। লন্ডনের পত্রিকা দ্য টেলিগ্রাফে এ নিয়ে একটি নিবন্ধও লিখেছেন  হোমসেক্রেটারি  অ্যাম্বার রুড। ‘টেরিজা মে উইল স্টে এজ প্রাইম মিনিস্টার এন্ড গেট দ্য জব ডান’ – শিরোনামে প্রকাশিত নিবন্ধে তার পক্ষে বলা হয়, মে’র ক্ষমতায় থাকা উচিত। মে’র কার্যত ডেপুটি ও  ফার্স্ট সেক্রেটারি অফ স্টেট  গ্রীন বলেন, তার দায়িত্ব বহাল থাকা উচিত। পরিবেশমন্ত্রী মাইক্যাল গোভ জানান, তিনি প্রত্যাশা করেন যে মে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন অব্যাহত রাখবেন। গ্রীন বিবিসিকে বলেন, আমি জানি তিনি ব্রেক্সিট সফল করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। এটা তার কাছে একটি দায়িত্ব। তিনি এটা সফলভাবে শেষ করবেন। আর এই সরকারকে একটি সফল সরকারে পরিণত করবেন। অনেক কনজারভেটিভ অ্যাক্টিভিস্টের ধারণা, এই মুহূর্তে কোন লিডারশিপ চ্যালেঞ্জ ইউরোপের বিষয়ে দলকে দুইভাগে বিভক্ত করে দেবে।

 

টেরিজা অনড়, অবিচলঃ

BrandNAT

ষড়যন্ত্র সত্যেও টেরিজা মে সংকল্পে অনড় এবং অবিচল। তিনি মনে করেন, কেবিনেট তার পক্ষে একতাবদ্ধ এবং ব্রেক্সিত ডেলিভারি দেয়ার জন্য তিনি যথাযথ কাজ করছেন।  টেরিজা বলেন, দেশ চায় শান্ত নেতৃত্ব এবং পুরো কেবিনেট তার পক্ষে সমর্থন রয়েছে। টোরি চেয়ারম্যান ম্যাকলাফলিন সহ স্যার হাওয়ার্ড, মেজর সহ সকল জ্যেষ্ট নেতাদের সমর্থন তার পেছনে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!