আপডেট ৬ min আগে ঢাকা, ১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ২রা রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ অগ্রযাত্রা

Share Button

ট্র্যাম্প-কিমের প্রত্যাশিত বৈঠকঃনতুন সম্পর্কের সূচনা

| ০৮:৩০, জুন ১২, ২০১৮

সিঙ্গাপুর অফিস। লন্ডন টাইমস নিউজ । ১২ জুন। ২০১৮। ছবি রয়টার্স ।

সার সংক্ষেপ

  1. যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং আন সিঙ্গাপুরের স্যান্টোসা দ্বীপের একটি পাঁচ তারকা হোটেলে বৈঠক করেছেন

  2. দুই নেতা সাংবাদিকদের সামনে একটি যৌথ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন

  3. কোরিয় উপদ্বীপে ‘পূর্ণ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ’এর অঙ্গীকার করেছে উত্তর কোরিয়া

  4. বিশ্লেষকরা বলছেন যৌথ ঘোষণায় তেমন গুরুত্বপূর্ণ কিছু নেই

  5. উত্তর কোরিয়ার নেতা এবং কোন মার্কিন প্রেসিডেন্টের মধ্যে এটি প্রথম বৈঠক

ট্রাম্প-কিম

কোরিয়া উপদ্বীপ থেকে সম্পূর্ণ পারমাণবিক কর্মসূচি বন্ধে কাজ করতে সম্মত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়া। ডোনাল্ড ট্রাম্প ও কিম জং-উন সিঙ্গাপুরে আলোচনার টেবিলে বসার পর আজ মঙ্গলবার যৌথ চুক্তিতে সই করেন। সই করা ওই চুক্তির ছবিতে দেখা যায়, উত্তর কোরিয়াকে পারমাণবিক কর্মসূচি থেকে বের হয়ে আসতে রাজি করাতে পেরেছে যুক্তরাষ্ট্র।

ওই নথি অনুযায়ী, দুই নেতা এখন নতুনভাবে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার সম্পর্ক উন্নয়নে কাজ করতে সম্মত হয়েছেন।

'দারুণ সম্পর্কের সূচনা হয়েছে', কিমের সঙ্গে বৈঠক শেষে বললেন ট্রাম্প

সিএনএন জানিয়েছে, সিঙ্গাপুরের সেন্তোসা দ্বীপের ক্যাপেলা হোটেলে ট্রাম্প ও কিমের একান্ত বৈঠক ও পরে দুই পক্ষের শীর্ষ কর্মকর্তাদের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এরপর গুরুত্বপূর্ণ নথিতে সই করার ঘোষণা আসে। একান্ত বৈঠক শেষে দুজনকে হাসিমুখেই বের হতে দেখা যায়।

গণমাধ্যমকর্মীদের ট্রাম্প বলেছেন, ‘আমরা খুব গুরুত্বপূর্ণ নথি সই করছি। একটি দারুণ বিস্তারিত দলিল।’

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম বলেছেন, ‘ঐতিহাসিক এক বৈঠক হয়েছে। অতীতকে পেছনে ঠেলে ঐতিহাসিক একটি নথিতে সই করতে যাচ্ছি। বিশ্ব ব্যাপক একটি পরিবর্তন দেখবে।’

চুক্তিতে সই হওয়ার পর দুই দেশের পক্ষ থেকে পরস্পরের প্রতি প্রশংসা করা হয় এবং ছবি তোলা হয়। তবে দুজন পাঁচ ঘণ্টার বৈঠকে কোন কোন বিষয়ে সম্মত হয়েছেন, তা এখনো জানা যায়নি। আজ বিকেলে ট্রাম্প এ বিষয়ে জানাবেন।

সন্ধ্যা সাতটায় এয়ার ফোর্স ওয়ানে করে সিঙ্গাপুর ছাড়বেন ট্রাম্প।

এদিকে, দুপুরেই চুক্তি সইয়ের পর সেন্তোসা দ্বীপ ছেড়ে গেছেন কিম জং-উন ও তাঁর দলবল।

চুক্তি সইয়ের পর ট্রাম্প বলেছেন, ‘কিমকে অবশ্যই আমি হোয়াইট হাউসে আমন্ত্রণ জানাব।’ এ ছাড়া তাঁর সঙ্গে ‘বিশেষ বন্ধন’ তৈরির কথা বলেন তিনি। কিমের প্রশংসা করে ট্রাম্প বলেন, ‘তিনি খুব ভালো আলোচক। নিজের দেশের মানুষের পক্ষে তিনি সমঝোতা করছেন।’

কিমকে কেমন দেখলেন—এমন প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প বলেছেন, ‘খুব বুদ্ধিমান মানুষ। তাঁর দেশকে তিনি খুব ভালোবাসেন।’

আবার কিমের সঙ্গে বসার কথা বলেছেন ট্রাম্প। এ ছাড়া দ্রুত পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ কর্মসূচি শুরুর কথা বলেন তিনি।

এদিকে দুই দেশের মধ্যে ঐতিহাসিক এ বৈঠককে উত্তর কোরিয়ার ঘনিষ্ঠ মিত্র চীনের দিক থেকে ইতিবাচকভাবে দেখা হচ্ছে। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই ওই বৈঠকের প্রশংসা করেছেন।

ট্রাম্প কিম

ওয়াং ই আশা করেন, এ সম্মেলনের মাধ্যমে পরস্পর অবিশ্বাস ও প্রতিবন্ধকতা দূর করে একটি ঐকমত্যে পৌঁছাতে সক্ষম হবে দেশ দুটি। সংশ্লিষ্ট সব পক্ষ এ প্রচেষ্টার সঙ্গে থাকবে এবং গঠনমূলক ভূমিকা পালন করে যাবে বলে আশা করছে চীন।

বিবৃতির চারটি প্রধান পয়েন্ট

বিবিসি’র লওরা বিকারে’র মতে ট্রাম্প-কিম বৈঠকের প্রধান চারটি পয়েন্ট:

  1. যুক্তরাষ্ট্র ও গণপ্রজাতন্ত্রী কোরিয়া নতুনভাবে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক স্থাপনে উদ্যোগী হবে ,যাতে দুই দেশের মানুষের দীর্ঘমেয়াদি শান্তি ও উন্নতির বিষয়টি প্রতিফলিত হবে।

  2. কোরিয় উপদ্বীপে স্থিতিশীল ও শান্তিপূর্ণ শাসনব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে যৌথভাবে কাজ করবে যুক্তরাষ্ট্র ও গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রী কোরিয়া।

  3. ২৭শে এপ্রিল ২০১৮’র পানমুনজাম বিবৃতি অনুযায়ী কোরিয় উপদ্বীপকে সম্পূর্ণ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের অঙ্গীকার রক্ষা করবে গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রী কোরিয়া।

  4. যুক্তরাষ্ট্র ও গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রী কোরিয়া যুদ্ধবন্দীদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে ভূমিকা রাখবে এবং এরই মধ্যে যেসব যুদ্ধবন্দী চিহ্নিত হয়েছেন তাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া অতিস্বত্তর শুরু করবে।

করমর্দনের মধ্য দিয়ে ঐতিহাসিক বৈঠক ঃ

সিঙ্গাপুরে বহু কাঙ্ক্ষিত বৈঠক করছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও কিম জং-উন। ছবি: রয়টার্স

করমর্দনের মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন সিঙ্গাপুরে আজ মঙ্গলবার বহু আকাঙ্ক্ষিত বৈঠক করছেন।

নানা নাটকীয়তা ও অনিশ্চয়তার পর অবশেষে দুই নেতা এক টেবিলে মুখোমুখি বসলেন। সিঙ্গাপুরের অবকাশ দ্বীপ সেন্তোসার বিলাসবহুল ক্যাপেলা হোটেলে এই ঐতিহাসিক বৈঠক হচ্ছে।

বৈঠকে ইতিবাচক ফল হবে—এমন আশায় স্বস্তির নিশ্বাস ফেলার অপেক্ষায় বিশ্ববাসী। ট্রাম্প ও কিমের বৈঠকের ইতিবাচক ফল কোরীয় উপদ্বীপকে পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত করাসহ সারা বিশ্বেই শান্তির সুবাতাস বইয়ে দিতে পারে।

আজ স্থানীয় সময় সকাল ৯টার দিকে ট্রাম্প ও কিম প্রাথমিক শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এরপর শুরু হয় একান্ত বৈঠক। পরে বর্ধিত বৈঠক। এতে দুই দেশের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত থাকছেন। তাঁরা মধ্যাহ্নভোজও করবেন।

করমর্দন করছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও কিম জং-উন। ছবি: রয়টার্সকরমর্দন করছেন কিম জং-উন ও ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: রয়টার্স

যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যকার এই শীর্ষ বৈঠক দ্বিতীয় দিনেও গড়াতে পারে বলে জানিয়েছে বিবিসি। তবে ট্রাম্পের আজই স্থানীয় সময় রাত ৮টায় ওয়াশিংটনের উদ্দেশে সিঙ্গাপুর ত্যাগ করার কথা। আর কিম স্থানীয় সময় বেলা দুইটায় সিঙ্গাপুর ছাড়তে পারেন।

কিছুদিন আগেও এই বৈঠক অকল্পনীয় ছিল। একবার বৈঠকের তারিখ চূড়ান্ত করেও তা বাতিল করেছিলেন ট্রাম্প নিজেই। তবে উত্তর কোরিয়া বৈঠক অনুষ্ঠানের ব্যাপারে হাল ছাড়েনি। নেপথ্যে কাজ করেন কয়েকটি দেশের সরকারপ্রধান ও কূটনীতিকেরা। এসব প্রয়াসের পর বৈঠকে অংশ নিতে ট্রাম্প ও কিম গত রোববার সিঙ্গাপুরে যান। গতকাল সোমবার বৈঠকের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি সারেন ট্রাম্প ও কিম।

Comments are closed.







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!