আপডেট ৯ ঘন্টা আগে ঢাকা, ১৬ই আগস্ট, ২০১৮ ইং, ১লা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জিলহজ্জ, ১৪৩৯ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ জাতীয়

Share Button

১৫ বছরের রুবীকে বাংলাদেশে নিয়ে পরিবার জোর করে বিয়ে দেয়ঃধর্ষক ও অ্যাবিউজারদের ভিসা ইস্যুর চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ

| ০০:১০, আগস্ট ২, ২০১৮

লন্ডন টাইমস নিউজ । দ্য টাইমস রিপোর্ট । ২ আগস্ট । ২০১৮ । ফোর্স ম্যারেজ

 

মেয়ের অমতে জোর করে বিয়ে দেয়ার প্রবণতা এখনো সমানভাবেই আগেরমতো রয়ে গেছে-বিশেষ করে ইমিগ্র্যান্ট পরিবার যেমন বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, আরব আমিরাতের পরিবারের মধ্যে। এসব পরিবার নিজেদের মেয়েদের অল্প বয়সে দেশে নিয়ে আগে থেকেই রেডি করা নিজ আত্মীয় কিংবা পরিচিত জনের ছেলের কাছে জোর জবরদস্তির মাধ্যমে মেয়েকে বিয়ে দেন। এখানেই শেষ নয়, এই সব দেশের ব্রিটিশ পরিবার ব্রিটেনের বাইরে নিয়ে মেয়েদের বিয়ে দিয়ে জোর করে তাদেরকে সহবাস এবং কয়েক মাস দেশে রেখে গর্ভবতী করে সন্তান প্রসবের পর সন্তান সহ মেয়েকে ব্রিটেনে নিয়ে এসে ঐ ছেলের জন্য ব্রিটেনে আসার আবেদন করেন। যাতে সন্তান হওয়ার কারণে স্ত্রীর ও সন্তানের সাথে স্বামীর মিলিত হওয়ার সহজ সুযোগের ব্যবহার করেন। এমনও ব্রিটিশ ইনিগ্র্যান্ট পরিবার রয়েছে, সেই মেয়ে জানেইনা, তাকে অত্যাচার ও অপদস্ত এবং জোর করে ধর্ষণকারী সেই স্বামীর জন্য হোম অফিসে আবেদন করা হয়েছে ভিসার জন্য। শুধু তাই নয়, মেয়ের অজান্তেই আবেদনের ডিক্লারেশনে সাইন করারও নজির রয়েছে। দ্য টাইমসের এমন এক তদন্তে চাঞ্চল্যকর এক তথ্য আজ প্রকাশিত হয়েছে।

(বাংলাদেশি রুবি-১৫ বছর বয়সে ফোর্স ম্যারিজের শিকার)

জানা গেছে, বাংলাদেশী ব্রিটিশ পরিবার রুবিকে ১৫ বছর বয়সে দেশে নিয়ে নিজ আত্মীয়ের সাথে বিয়ে দেন, যে কিনা তার চেয়ে বয়সে অনেক বড়। সে রুবীকে শারিরিক ও মানসিকভাবে অত্যাচার করে। সন্তান সহ রুবী ব্রিটেন ফিরে এসে হোম অফিসে এবং তৃতীয় মাধ্যমে আবেদন করে যাতে তার অত্যাচারি ও ধর্ষক স্বামীকে ভিসা না দেয়। এরকম আরো একজন ব্রাডফোর্ডের একই বয়সের মেয়ে যাকে তার স্বামী শারিরীক ভাবে নির্যাতন করেছে। সেও ব্রিটেনে ফিরে এসে হোম অফিসে তার স্বামীকে ভিসা না দেয়ার আবেদন করে।

 

এরকম সুনির্দিষ্ট ৮৮টি কেস সানডে টাইমসের তদন্তে এসেছে। অথচ দেখা গেছে, হোম অফিস ৪৪টিরও বেশী সেই সব আবেদন মঞ্জুর করে স্বামীদের ভিসা দিয়েছে এবং বাকীগুলো দেয়ার পথে অথবা ১০টির মতো অ্যাপিলে রয়েছে।

 

দ্য টাইমসের রিপোর্ট অনুযায়ী এধরনের কেসের ক্ষেত্রে সাবেক এমপি জর্জ গ্যালোওয়ে এবং লেবার দলীয় এমপির সুপারিশ রয়েছে ঐ স্বামীদের ভিসা ইস্যুর জন্য বলে জানা গেছে।

দ্য টাইমস বিগত ৬ মাসের অনুসন্ধানে অবগত হয়েছে,

 

০১) লেবারদলীয় এমপিদের সুপারিশের ভিত্তিতে হোম অফিস কেসের নথিভুক্ত সেই সব স্বামীদের ভিসা ইস্যু করেছে।

০২) এমনও একজন টিনএজ নারী রয়েছেন, যাকে দেশে বিয়ে করে একরকম দাসির মতো বন্দী করে রাখা হয়েছিলো, তার স্বামীকেও ভিসা ইস্যু করেছে

০৩) ফোর্স ম্যারিজের স্বামীরা মেয়েদের জোর করে শারিরীক সম্পর্ক করেছে, যাতে তাদের বিশ্বাস সন্তান হয়ে গেলে ভিসা পেতে সহজ হবে

০৪) সুনির্দিষ্ট কেস নথিভুক্ত বা অভিযোগ দায়েরের পরেও হোম অফিস ভিসা ইস্যু করেছে তাদের

 

হোম অফিস এফেয়ার্স সিলেক্ট কমিটির চেয়ারম্যান ইউভেট কোপার মনে করেন, এধরনের আবেদনের পরেও হোম অফিস ব্যর্থ হয়েছে ধর্ষক ও অ্যাবিউজারদের ভিসা ব্লক করতে।

 

হোম অফিস বলছে, অভিযোগ দায়েরের পরে হোম অফিসের ইনভেস্টিগেশনে প্রয়োজনীয় কোন অ্যাকশন নেয়ার দরকার হয়নি সেসব ক্ষেত্রে।

 

ফোর্স ম্যারিজ ভিক্টিম চ্যারিটির কারমা নির্ভাণা বলেন, তারা বছরে ১৩,০০০ কল পান ন্যাশনালি এধরনের ফোর্স ম্যারিজের ক্ষেত্রে হোম অফিসের অনেকটাই অন্ধ চোখে রয়েছে-ভিসা ইস্যুর ক্ষেত্রে।

 

 

Comments are closed.







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!