আপডেট ২ ঘন্টা আগে ঢাকা, ২৪শে মার্চ, ২০১৯ ইং, ১০ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৫ই রজব, ১৪৪০ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ মুক্তমত

Share Button

একজন তরুন কবির চোখে বঙ্গবন্ধু

| ২২:৫৫, আগস্ট ১২, ২০১৮
সাকিব জামাল
“শোন একটি মুজিবরের থেকে লক্ষ মুজিবরের কন্ঠস্বরের ধ্বনি-প্রতিধ্বনি আকাশে বাতাসে ওঠে রণী বাংলাদেশ, আমার বাংলাদেশ।। – গৌরী প্রসন্ন মজুমদার” প্রথমেই ক্ষমা প্রার্থণা করে নিচ্ছি – এতো উচ্চমানের একটি প্রবন্ধ আমার মত ক্ষুদ্র মানুষ লিখতে বসেছি হয়তো আমার জ্ঞান স্বপ্লতায় ভুলত্রুটি হতে পারে । দ্বিতীয়ত লেখার স্বার্থে নিজেকে “কবি” ধরে নিতে হচ্ছে । এ দুটো বিষয় ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে সবাইকে দেখার অনুরোধ করছি । একুশ-ছাব্বিশ-ষোল : এই আমার অস্তিত্ব । একুশ-ছাব্বিশ-ষোল : ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি, ১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ এবং ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর এই তিনটি তারিখ খোচিত আমার অস্তিত্ব । বায়ান্নো এবং একাত্তর এই দুটো চেতানা নিয়েই একজন বাঙালি তরুন কবির সত্ত্বা । শুধু কবিগন নয় – পুরো বাঙালি জাতির অভ্যুদয় এই দুটি সালের সেতুবন্ধন থেকে উৎসারিত । একাত্তরে বিজয় অর্জিত বাঙালি জাতির কবিতা কাহনে, লাল-সবুজের পতাকার দেশে কবিতা নিয়ে আলোচনা শুরু করলে দেশত্ববোধক কবিতার কথা প্রথমে আসে ।
কবিতামাতৃক বাংলাদেশে দেশের কবিতা নানা আঙিকে চিত্রিত হয় কবির কলমের আঁচরে । যারা লেখালেখি করেন তারা বাংলার রূপ সৌন্দর্য্য, ঋতু বৈচিত্র্য যেমন এড়াতে পারেন না কোনভাবেই – তেমনি একটি মহান চরিত্রকে উপেক্ষা করতে পারেন না কোনমতেই । আর সে চরিত্রটি হচ্ছেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান । “ লাল সবুজের পতাকায়-মুজিব তোমায় দেখা যায়” এটি শুধু রাজনৈতিক স্লোগানই নয়, বাস্তবতা প্রতিচ্ছবি । এজন্যই বিভিন্ন প্রেক্ষিতে, বিভিন্ন উপলক্ষ্যে, বিভিন্ন দিবসে বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠেন তরুন কবিদের লেখনিতে অন্যতম প্রধান চরিত্র । “বিশ্বকবির সোনার বাংলা নজরুলের বাংলাদেশ , জীবনানন্দের রূপসী বাংলা রূপের যে-তার নেইকো শেষ” – দেশত্ববোধক কবিতার কথাই তাই প্রথমে বলি । দেশত্ববোধক কবিতা, গান সব সময়ই বাঙালিদের প্রাণের খোরাক ।
আমার প্রিয় বাংলাদেশকে নিয়ে কবিতা আমি যখন লিখতে বসি, দেশমাতার সমান কোন ব্যক্তিত্ব কল্পনা যদি করতে হয় কবিতার প্রয়োজনে, তবে তিনি একমাত্রই বঙ্গবন্ধু । কবি মাত্রই দেশপ্রেমিক । দেশপ্রেম তার মনকে বিভিন্নভাবে প্রভাবিত করে । দেশের সমসাময়িক বিষয়াবলী ধনাত্মক এবং ঋনাত্মক উভয়ভাবেই ফুটে ওঠে দেশের কবিতায় । মজার ব্যাপার- দুই ধরনের কবিতায় কবির অন্তরকুঞ্জে বাস করেন জাতির জনকের চেতনার, তার দ্রোহের কন্ঠস্বরের পাখিরা । প্রায় সব কবির দেশের কবিতায় তাই অপ্রতিদ্বন্ধী একক চরিত্র বঙ্গবন্ধু । দেশের সাথে জড়িত সব ঘটনায় বঙ্গবন্দু এতিহাসিকভাবে জড়িত । ইতিহাসের বিভিন্ন ঘটনা প্রবাহের কবিতায় তিনি উজ্জ্বলতম চরিত্র ।
১৯৬৩ এর ২৮ আগস্ট বর্ণবাদী আন্দোলনের নেতা মার্টিন লুথার কিং এর সেই ‘আই হ্যাভ অ্যা ড্রিম’ মহাকাব্যের পর আরো একটি মহাকাব্য রচিত হয় ১৯৭১ এর ৭ মার্চ রেসকোর্সে । যেমন এতিহাসিক ৭ মার্চ নিয়ে আমার লেখা“একটি মুজিব- একটি তর্জনী আঙুল” কবিতায় বলেছি – “এই প্রজন্মের এই আমি কৃতজ্ঞ সদা – একটি মুজিবের, একটি তর্জনী আঙুলের নির্দেশে- জন্মেই পেয়েছি প্রিয় বাংলাদেশ, প্রিয় স্বাধীনতা ।” এ বিষয়ে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া বলেছেন, “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু সাধারণ কোন নাম বা উপাধি নয়-একটি ইতিহাস, একটি স্বাধীন বাংলাদেশ, একটি স্বাধীন জাতিসত্ত্বা” -এই উক্তিটি প্রণিধানযোগ্য । (সুত্র : এই বেলা ।) দেশের কবিতা, দেশপ্রেমের কবিতা – এসব ক্ষেত্রে শুধু তরুন কবিদেরই নয় সবই কবির কবিতায় তিনি অপ্রতিদ্বন্ধী চরিত্র । এ দেশের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা থেকে জাতির জনক বলেছিলেন – “এখন যদি কেউ বাংলাদেশের স্বাধীনতা হরণ করতে চায়, তাহলে সে স্বাধীনতা রক্ষা করার জন্যে মুজিব সর্ব প্রথম তার প্রাণ দেবে।“ স্বাধীনতার কবিতার কথা বলি এবার । স্বাধীনতা হীনতায় কেউ থাকতে চায় না, বাঁচতে চায় না ।
যুগে যুগে শুধু স্বাধীনতার জন্যই পৃথিবীর বুকে লড়াই হয়েছে, হচ্ছে । আমরাও করেছি ১৯৭১ সালে দীর্ঘ নয় মাস । বাঙালি জাতি যখন নির্যাতন নিপীড়নে ক্লান্ত তখন আশার আলোকবাতি জ্বালিয়ে রেখেছিলেন একমাত্র বঙ্গবন্ধু । ইতিহাস জানা আছে সবার । আমি আলোচনাকে সাহিত্যের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখছি তাই । “Our sweetest songs are those that tell of saddest thought.” – Percy Bysshe Shelley তিনি বলেছেন এ কথা, আর আমি বলি-“Our sweetest songs are those that tell of maximum freedom.” আর এ কথাটি আমাকে শিখিয়েছেন বঙ্গবন্ধু ! কিভাবে শিখালেন তা আপনিও জানেন, যখন তিনি স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দিয়ে সাথেই বলে দিলেন এটি আমাদের মুক্তিরও সংগ্রাম । সে কারণেই তরুন কবিদের স্বাধীনতার কবিতা, মুক্তির কবিতা লেখার প্রেরণার ব্যাক্তিত্ব বঙ্গবন্ধু ।
তরুন কবিদের স্বাধীনতার কবিতা একাত্ত্বর থেকে পাওয়া, এর প্রেক্ষিতে আমি আমার “আমার স্বাধীনতা” কবিতায় বলেছি – “আপনমনে ঘর বাধা—আপনমনে বাস, আপনমনে সবার সনে—ন্যায্য ভূমির চাষ, এ আমার ভালোবাসা—এগিয়ে যাওয়ার প্রথা একাত্তরে যুদ্ধে পাওয়া—আমার স্বাধীনতা।“ পক্ষান্তরে অগ্রজ কবিদের স্বাধীনতার কবিতা ছিলো একাত্তরপূর্ব নানা বিষয়, নানা ব্যাক্তি, নানা রাজনৈতিক প্রক্ষাপট সহ একাত্ত্বর থেকে পাওয়া । এর মানে একাত্ত্বরপূর্ব এবং উত্তর দুটো সময়ই অগ্রজ কবিরা দেখেছেন, আমরা দেখেছি একটি সময় একাত্ত্বর উত্তর থেকে সমসাময়িক- এতটুকুই পার্থক্য । আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামে ভুমিকা রাখা ব্যক্তিবর্গ থেকে তরুন কবিদের কবিতায় অন্যান্য নেতৃবৃন্ধের বঙ্গযন্ধু স্বমহিমায় প্রধান চরিত্র হয়েছেন । “বাংলাদেশ” কবিতায় আরেক তরুন কবি শুভাশিস দাশ বলেছেন- “স্বাধীনতা তোমার নামে শপথ নিয়ে বলি শেখ মুজিবের পথেই যেন ন্যায়ের পথে চলি!”( সূত্র : চিন্তাসূত্র ) জাহাঙ্গীর হাবীবউল্লাহ তার কবিতা “পতাকায় পেল সুখ” এ বলেছেন – “আহ্বান ধ্বনি আকাশে বাতাসে অন্তরে এলো ভেসে মার্চের ডাক মহান নেতার মুক্তিযুদ্ধ দেশে, বীরযোদ্ধারা ন’মান যুদ্ধে পতাকায় পেল সুখ স্বাধীন হয়েছি বিজয়ের ফলে দেখি সূর্যের মুখ।“(স

Comments are closed.







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!