আপডেট ১ ঘন্টা আগে ঢাকা, ২০শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং, ৫ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৯ই সফর, ১৪৪০ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ অর্থ-বণিজ্য

Share Button

পলিথিনের পরিবর্তে পাট দিয়ে তৈরী পণ্যই পরিবেশের জন্য সবচেয়ে উপযোগী

| ২৩:০২, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৮

নজরুল ইসলাম জহির, মধ্যপ্রাচ্য প্রতিনিধি, লন্ডন টাইমস নিউজঃ  

 

 

বাংলাদেশ ‘সোনালী আঁশের দেশ’। পাট আমাদের প্রধান অর্থকরী ফসল। বাঙালির জীবন-জীবিকা, ব্যবসা-বাণিজ্য, সমৃদ্ধি ও সংস্কৃতির সঙ্গে নিবিড়ভাবে জড়িয়ে আছে পাট চাষ। পাট ‘সোনালী আঁশের’ মর্যাদা অর্জন করেছিল ১৮৯০-এর দশকে। গত শতাব্দীজুড়ে আন্তর্জাতিক নীতি, যুদ্ধবিগ্রহ, অর্থনৈতিক মন্দা, ‘সিনথেটিক বিপ্লব’সহ বিভিন্ন কারণে পাটের গৌরব ওঠানামা করেছে। ইতিহাসের পথপরিক্রমায় বাংলার পাট আবার নতুন সম্ভাবনার মুখ দেখছে। গ্রিন ইকোনমি, বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি, ন্যাচারাল ফাইবারের ব্যাপক চাহিদা ও সরকারের সাহসী পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশের সোনালী আঁশের ‘সোনালী সম্ভাবনা’ দেখা দিয়েছে।

পাট বিশ্বে সবচেয়ে সস্তা, পরিবেশবান্ধব ও বায়ো-ডিগ্রেডেবল প্রাকৃতিক তন্তু। প্রাকৃতিক তন্তু হিসেবে তুলার পরই পাটের অবস্থান। বৈশ্বিক তন্তুর ৯১ শতাংশ জোগান আসে তুলা ও সিনথেটিক তন্তু থেকে। পাট জোগান দেয় ৬ শতাংশ। প্যারিস সম্মেলনের পর বিশ্বজুড়ে বায়ো-ডিগ্রেডেবল ও পরিবেশবান্ধব পাটের প্যাকেট ও বস্তার চাহিদা বেড়ে গেছে। পাট থেকে উন্নতমানের মিহি সুতা আবিষ্কার পাটের সম্ভাবনা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।

যুগের পথপরিক্রমায় পাট আবার নতুন অধ্যায়ে প্রবেশ করেছে। বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি, গ্রিন ইকোনমি ও সবুজ পৃথিবীর বাস্তবতায় বিশ্বজুড়ে পাট ও পাটপণ্যের প্রতি আগ্রহ আশাতীতভাবে বেড়ে গেছে। কার্বন নিউট্রাল সবুজ পৃথিবী ও লাগসই উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির জন্য বৈশ্বিক কণ্ঠ একসুরে মিলেছে। ‘সবুজ পণ্যের’ আন্দোলন বৈশ্বিক রূপ লাভ করেছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে পাটের নতুন সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। পাটের বহুমুখী ব্যবহারের ফলে বিশ্ববাজারে পাটের চাহিদা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে।

বদলে যাচ্ছে সোনালী আঁশ পাটের ভবিষ্যৎ। উন্মোচিত হতে পারে পাট নিয়ে নতুন শিল্প সম্ভাবনার দুয়ার।  বড় বাণিজ্যের হাতছানি দিয়ে ডাকছে পাট। আর এই সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে পাট দিয়েই পলিথিন তৈরি হওয়াকে কেন্দ্র করে।

এ যুগান্তকারী উদ্ভাবন করেছেন বাংলাদেশেরই খ্যাতিমান বিজ্ঞানী ড. মোবারক আহমদ খান। তার উদ্ভাবিত এ পলিথিন দিয়ে বানানো ব্যাগের নাম দেয়া হয়েছে ‘সোনালি ব্যাগ’।

ফলে বদলে যেতে পারে বাংলাদেশের সোনালি আঁশ খ্যাত পাটের ভবিষ্যৎ। আর এ পাটের হাত ধরেই চিরতরে বিদায় নিতে পারে পরিবেশ ধ্বংসকারী পলিথিন। সম্প্রতি পাট থেকে পলিথিন উদ্ভাবনের মধ্য দিয়ে নতুন এ সম্ভাবনার সৃষ্টি হয়েছে।

Comments are closed.







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!