আপডেট ২ ঘন্টা আগে ঢাকা, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং, ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৭ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ জাতীয়

Share Button

নিজের মেধা ও যোগ্যতাকে কাজে লাগিয়ে স্বপ্ন পূরন করেছেন ভোলার চরফ্যাশনের ১৩ তরুনী

| ২২:৩৩, নভেম্বর ৮, ২০১৮

ভোলা প্রতিনিধি

দ্বীপ জেলা ভোলার চরফ্যাশনের ১৩ তরুনী নিজের মেধা ও যোগ্যতাকে কাজে লাগিয়ে স্বপ্ন পূরন করেছেন। পড়াশুনার পাশাপাশি নিজের মেধাকে কাজে লাগিয়ে খুব সহজেই মিডিয়া অঙ্গনে প্রবেশের সেই স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়েছে তাদের। খুজে পেয়ে আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ। খুব সহজেই কাঙ্খিত পৌছাতে সক্ষম হয়েছেন তারা। এখন এরা নিজেরাই রিপোটার, এডিটর, উপস্থাপিকা ও প্রোগামার। তারা সংবাদ লেখেন, লাইভে থাকেন এবং বিনোদনসহ নানা অনুষ্ঠান করে ইতমধ্যেই বেশ সুনাম অর্জন করেছেন।

এরা অন্য কেউ নয়, সফল তরুনীদের গল্পটা এমনই। উপকূলের কন্ঠস্বর হিসাবে পরিচিত রেডিও মেঘনার একঝাক উদ্যোমী কর্মী। রেডিও মেঘনা বলতেই তৃনমূলে ছড়িয়ে রয়েছে অর্পিতা দাস, আখি, তৃষ্ণা রানী, বৃষ্টি আফরোজ নিশি, মৌসুমী রানী দাস, চম্পা কলী, সালমা, সোনিয়া, মিশু, ঝুমুর, রাএি, রিতু, শারমিন ও মুক্তা। দুরন্ত প্রতিভা এদের। এক সংগ্রামী জীবনের পথচলায় এগিয়ে আসছেন তারা।

বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা কোস্ট্র ট্রাস্ট্রের রেডিও এফ.এম ৯৯.০ কর্মী হয়ে এরা বেশ গর্বিত। পড়ালেখার পাশাপাশি এ কাজটিকে বেশ উপভোগ করছেন তারা। গত দই বছরের অধিক সময় ধরে নিরলসভাবে কাজ করে রিডিও মেঘনাকে এগিয়ে নিয়েছেন তারা। রেডিও মেঘনা এখন তৃনমূলে সবার কাছে এক পরিচিত মাধ্যমে পৌছে গেছে।

সুএ জানায়, রেডিও মেঘনা ২০১৫ সালের ১৮ ফ্রেবরুয়ারী যাএা শুরু করে। এরপর থেকেই তাদের নিয়মিত আয়োজনের রয়েছে, কৃষি ও কৃষক, জেলে জীবন ও প্রকৃতিক দুর্যোগ, স্বাস্থ্য, পাঠশালা, আজকের শিশু, ভূমিহীন মানুষ, সফল নারী, প্রতিভাবান নারী, সফল উদ্যোক্তা, আমরা কিশোর-কিশোরী, রঙ্গ, সাজ সজ্জাসহ নানা আয়োজনের ২৫টি ইভেন্ট। এসব অনুষ্ঠান অত্যান্ত সফলভাবেই করে যাচ্ছেন রেডিও মেঘনার কর্মীরা। প্রতিনিয়ত মাঠ পর্যায়ে কাজ করেই রেডিও মেঘনার জন্য তুলে আনছেন স্বাক্ষাতকার সংবাদ তৈরি, ভয়েস দেয়া, তৃনমূলের প্রতিচ্ছবি ও বিনোদনের নানা আয়োজন।

মিডিয়ার এ কাজকে বেশ উপভোগ করছেন তারা। এসব নারীদের নেতৃত্বে রয়েছেন আরেক সফল নারী রাশিদা বেগম। তার দিক নির্দেশনায় এসব তরুনীরা এগিয়ে যাচ্ছেন। সংগ্রামী তরুনীদের মধ্যেই একজন অর্পিতা দাস আখি। তিনি চরফ্যাশন সরকারি কলেজে বিকম পড়ছেন। বাবা সুখরঞ্জন দাস একজন সরকারি চাকুরীজীবী। আখি রেডিও মেঘনার টেকনিক্যাল অফিসার পদে দায়িত্বরত রয়েছেন।

তিনি বলেন, এক সময় স্বপ্ন দেখতাম মিডিয়া অঙ্গনে প্রবেশ করবো, এখন স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়েছে। এক বছর ধরে তিনি এর সাথে যুক্ত রয়েছেন। তিনি বলেন, পড়াশুনার পাশাপাশি মিডিয়ায় কাজ করতে পেড়ে খুবই আনন্দিত। এ পেশাটিকে আমি খুব উপভোগ করছি। একজন দক্ষ রিপোর্টার হিসেবে কাজ করছেন আরেক তরুনী তৃষ্ণা রানী পাল। তিনিও চরফ্যাশন কলেজে ডিগ্রীতেঅধ্যায়রত। তিনি বলেন, এক সময় রেডিওতে কাজ করার স্বপ্ন দেখতাম, অবশেষে সেই স্বপ্ন পূরন হলো এখন আমি একজন প্রতিষ্ঠিত রিপোর্টার হওয়ার স্বপ্ন দেখি।

এ্যাসিস্টেও স্টেশন অফিসার হিসাবে দক্ষতার সাথেই কাজ করছেন আরেক সংগ্রামী তরুনী বৃষ্টি আফরোজ নিশি। তার বাবা মো: সালাউদ্দিন, কৃষি কাজ করেন তিনি। মধ্যবিওের এ পরিবারটিও বেশ সুখি। নিশির আয়ের উপার্জিত টাকা দিয়ে পড়াশুনা ও তাদের জীবন-জীবিকা চলে। নিশি পড়ছেন অনার্সে। মাসে যা পান তা পেয়ে খুব খুশি তিনি। নিশি বলেন, পরিচিতি একজনের সহযোগীতায় রেডিওতে কর্মসংস্থান হয়েছে। মিডিয়াতে কাজ করার স্বপ্ন পূরন হলো, ভবিষ্যাতে একজন প্রতিষ্ঠিত মিডিয়া ব্যাক্তি প্রতিষ্ঠিত হতে চাই।

আরেক সংগ্রামী নারী মৌসুমী রানী দাস। তার পিতা লক্ষি কান্তি দাস একজন ব্যাবসায়ী। পড়াশুনার পাশাপাশি মৌসুমী কাজ করছেন মৌসুমী। রেডিও মেঘনার উপস্থাপিকা হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। মৌসুমী বলেন, রেডিও মেঘনায় আসতে সহযোগীতা করেছেন তারই সহকর্মী নিশি। পড়ালেখার পাশাপাশি রেডিওতে কাজ করে বেশ আনন্দিত তিনি। উপার্জিত টাকা পরিবারের সহযোগিতা যোগান দিচ্ছেন তিনি।

শুধু রিপোটিং, উপস্থাপনা ও প্রোগাম করেই নয়, কবিতা, আবৃওি, নাটক ও কৌতুকের বেশ পারদর্শি চম্পা কলী। খুব প্রতিভা রয়েছে রেডিও মেঘনার এ কর্মীর। তার বাবা সিরাজুল ইসলাম একজন ব্যাবসায়ী। ৭ ভাইয়ের এক বোন তাই তার নাম চম্পা একমাএ আদরের মেয়ে। পৌর ৩নং ওয়ার্ডেও বাসিন্দা চম্পা কলী শুরু থেকেই আছেন রেডিওতে। চম্পা বলেন, নিজের মেধা ও যোগ্যতাকে কাজে লাগানো সাফল্য নিশ্চিত তাই সব সময় মেধাকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করেছি ভবিষ্যতেও একজন প্রতিষ্ঠিত মিডিয়া ব্যাক্তিত হতে চাই। তিনি আরো বলেন, নারী হয়ে আমাদেও মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে গিয়ে কোন প্রতিকূলতার মধ্যে পড়তে হয়না। আমাদেরকে সকলে সহযোগিতা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!