আপডেট ২২ ঘন্টা আগে ঢাকা, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ জাতীয়

Share Button

গাইবান্ধায় নিজের আবাদী জমি হতে বছরে পর বছর বঞ্চিত মনোয়ারা-আফছার দম্পতি

| ২৩:৫৭, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯

আশরাফুল ইসলাম,জেলা প্রতিনিধি গাইবান্ধা-গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলার উদাখালী ইউনিয়নের বুড়াইল মৌজার বিভিন্ন খতিয়ানের দাগে মোট ৯৮ শতাংশ নিজের আবাদী জমি হতে বছরে পর বছর বঞ্চিত হয়ে আছে মনোয়ারা-আফছার আলী দম্পতি।

 

এ জমি গুলো মনোয়ারা – আফছার আলী দম্পতি ১৯৬১ সালে জোতদারী ক্ষতি বা খেসারত তালিকা কর্তৃক প্রস্তুতকৃত নামীয় ব্যক্তির নিকট ২৩-১-১৯৮২ সালে ১১৪ হেবাবিল দলিল মুলে প্রাপ্ত জমি গত ১৯-৬-১৯৯২ সালে কবলা মুলে ৫৭ শতক জমি হস্তান্তর করেন দখল প্রদান করেন । এবং জমির মালিক আব্দুল্যা গত ২৬-৬-১৯৯৩ সালে ৭৪৭ রেজিঃকৃত কবলামুলে ৩১ শতাংশ জমি এ দম্পতির নিকট বিক্রি করেন। এর মধ্যে মনোয়ার নামে ১৬ শতক রের্কড হয় ও ৩১ শতাংশ জমি মনোয়ার তিন ভাইয়ের নামে রের্কড হয়েছে। দীর্ঘ দিন এসব জমি ভোগদখলে রেখে চাষ আবাদ করে আসাকালে গত ২০১১ সালে হঠাৎ করে পেশাশক্তির বলে জমিতে দাঙ্গা হাঙ্গা চালিয়ে চাষ আবাদে বাধা প্রদান করিতে থাকিলে সেসময় গত ১-৬-২০১১ ইং তারিখে ফুলছড়ি থানায় আয়নাল হক গং এর নামে জিডি করা হয়। এরপরও আয়নাল হক গং জমিতে চাষা আবাদে বাধা দিতে থাকিলে পরে বোচার বাজার প্রাইমারী স্কুলে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ গণমান্য ব্যক্তিবর্গের নিয়ে শালিস বৈঠক বসিলে শালিসে কোন প্রকার বৈধ কাগজপত্রাদি না দেখাতে পারার পরের জমিতে আবারো চাষ আবাদে বাধা প্রদান করিলে মনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করে

 

এ মামলা একে একে তিনবার রায় পাওয়ার পরে একমাত্র পেশাশক্তি ও আইনি জটিলতা সৃষ্টি করে বছরের পর বছর ৪৭ শতাংশ জমি হতে এ দম্পতিকে বঞ্চিত করে রেখেছেন।এছাড়াও আয়নাল গংদের ইন্ধনে অপর অংশে ৫১ শতাংশ জমি বুড়াইল গ্রামের মৃত আজিজুল ইসলামের ছেলে কাবিল উদ্দিনগণ জোড়পূর্বক ৫১ শতাংশ জমিতে চাষা আবাদে একই কায়দায় বাধা প্রদান করে আদালতে কাগজপত্রাদি উপস্থাপনে তালবাহানা করত সময় ক্ষেপন করে এ দম্পতিকে হয়রানী করে আসছে।

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা ও জানা যায় , এসব আবাদী জমির চারপাশে মনোয়ারা -আফসার দম্পতি ইউক্লিপ্টাস গাছ রোপন করেছিলেন সে গুলো বর্তমানে বড় হয়েছে। কিন্তু আবাদী জমি গুলো বছরের পর বছর পড়ে আছে দুই পক্ষের কেউ চাষাবাদ করতে পারছে না । নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় বয়স্ক মানুষেরা জানান, আয়নাল হক গং ও কাবিল উদ্দিন গং এর বসত বাড়ীর নিকট উক্ত জমি গুলো হওয়ায় তারা পেশাশক্তির বল প্রয়োগ করে জমির প্রকৃত মালিক মনোয়ারা আফসার দম্পতিকে বছরের পর বছর জমি গুলো হতে বঞ্চিত করে রেখেছেন। আয়নাল হক গং এ জমির পাশে হতে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে উক্ত জমি ব্যবহার করছেন। তাদের দাঙ্গাবাজীর কারণে এ অপব্যবহার ও অপকর্মের বিষয়ে কেউ কোন প্রতিবাদ করতে পারে না ।

 

এবিষয়ে অভিযুক্ত আয়নাল হক এর নিকট জানতে চাইলে তিনি কোন কিছু বলতে রাজি হয় না ,অনকে কিছু বলার পর তিনি শুধু জানান আদালতে মামলা চলছে আদালতে জানানো হবে আপনাদের কোন কিছু জানাতে পারবো না। কাবিল গং এর লোকজন জানান আমরা পত্রিক সূত্রে জমি পাই সেকারনে জমি চাষা আবাদে মনোয়ারা আফছার আলী দম্পতিকে বাধা প্রদান করছি। আদালতের মাধ্যমে ফয়সালা হওয়ার পর তারা এ জমি আবার ভোগ দখল করতে পারবে এর আগে আমরা তাদের এ জমিতে আসতে দিবো না ।

 

এদিকে ভুক্তভোগী মনোয়ারা ও আফছার দম্পতি জানায় দীর্ঘ দিন চাষ আবাদ করে আসা জমি গুলোর বৈধ মালিক হওয়া স্বত্বেও আমরা আজ জমি গুলো হতে বঞ্চিত । আয়নাল হক গং ও কাবিল উদ্দিন গং পেশাশক্তির বলে আমাদের জমিতে চাষা আবাদ বন্ধ করে দিয়েছে গত ১১ সাল হতে আমরা এসব জমিতে চাষ আবাদ করতে পারছিনা । আমাদের বৈধ জমি গুলো ফিরে পেতে আমরা সংশ্লিষ্ট সকলের ও বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!