ঢাকা-লন্ডন তৃতীয় কৌশলগত সংলাপ এপ্রিলে,ভিসা প্রক্রিয়াকরণকে ঝামেলামুক্ত করার আহ্বান মোমেনের

প্রকাশিত: ৯:১৬ অপরাহ্ণ, মার্চ ৫, ২০১৯ | আপডেট: ৯:১৬:অপরাহ্ণ, মার্চ ৫, ২০১৯

চলতি বছরের এপ্রিল মাসে বাংলাদেশ ও বৃটেনের মধ্যে তৃতীয় ‘কৌশলগত সংলাপ’ অনুষ্ঠিত হবে। মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেনের সঙ্গে বৃটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেকের বিদায়ী সাক্ষাতে এ নিয়ে আলোচনা হয়। এসময় বিদায়ী বৃটিশ দূত ব্লেক দু’দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের গভীরতা পর্যালোচনা করার জন্য সংলাপকে একটি ‘বিস্ময়কর কাঠামো’ হিসেবে অভিহিত করেন। ২০১৮ সালের ১৫ই মার্চ লন্ডনে ফরেন অ্যান্ড কমনওয়েলথ অফিসে বৃটেন ও বাংলাদেশের মধ্যে দ্বিতীয় কৌশলগত সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে দু’দেশের মধ্যে রাজনৈতিক, দ্বিপাক্ষিক বিষয়, অর্থনৈতিক ও উন্নয়ন সহযোগিতা, নিরাপত্তা ও প্রতিরক্ষা সহযোগিতা এবং রোহিঙ্গা সংকটসহ বর্তমান বৈশ্বিক সমস্যা নিয়ে ‘ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছিল। দু’দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও শক্তিশালী ও বিস্তৃত করতে হাইকমিশনার ব্লেকের নিবেদিত ও কঠোর পরিপ্রমের প্রশংসা করেন মন্ত্রী ড. মোমেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশে বৃটিশ কোম্পানিগুলোকে আরও বিনিয়োগে উৎসাহিত করার জন্য আলিসন ব্লেকের অব্যাহত সহায়তা চান। বৃটেনে বিশেষ করে সিলেট থেকে অর্ধ-লাখের বেশি বৃটিশ-বাংলাদেশি রয়েছে উল্লেখ করে হাইকমিশনারকে বৃটেনের ভিসা প্রক্রিয়াকরণকে আরও ঝামেলামুক্ত করার আহ্বান জানান মোমেন।

বাংলাদেশে দায়িত্বপালনকালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সরকারের সকল প্রকার সমর্থনের জন্য বৃটিশ দুত পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং সরকারকে ধন্যবাদ জানান। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, বাংলাদেশের ব্রেক্সিট-পরবর্তী বাণিজ্য সম্পর্কে বৃটেনের বিদায়ী দূত আশ্বস্ত করে বলেছেন, অস্ত্র ছাড়া (এভরিথিং বাট আর্মস-ইবিএ)  বাংলাদেশ ইউরোপীয় ইউনিয়নের আদলে বৃটেনেও সকল বাণিজ্য সুবিধা পাবে বাংলাদেশ। রোহিঙ্গা সংকটে টেকসই ও শান্তিপূর্ণ সমাধানে বিশ্বব্যাপী শক্তিশালী নেতৃত্ব জোরদারকরণে বৃটেনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিদায়ী বৃটিশ দূতকে ধন্যবাদ জানান। পরে হাইকমিশনার ব্লেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলম এমপির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং বাংলাদেশে তার মেয়াদকালে সব ধরণের সহায়তার জন্য ধন্যবাদ জানান। বর্তমান রাজনৈতিক সম্পর্ক, রোহিঙ্গা সংকট, সন্ত্রাস মোকাবিলা, এবং বৃটেনে আসন্ন ক্রিকেট বিশ্বকাপ সম্পর্কে সেখানে আলোচনা হয় বলে জানানো হয়েছে। ঢাকায় ৩ বছরের দায়িত্বের মেয়াদ শেষ হওয়ায় আগামী ৭ মার্চ অ্যালিসন ব্লেকের বাংলাদেশ ত্যাগ করার কথা রয়েছে।