আপডেট ১ ঘন্টা আগে ঢাকা, ২০শে জুলাই, ২০১৯ ইং, ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"normal","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ এক্সক্লুসিভ

Share Button

বিএনপির ১০ বছরের সাজানো বাগান তছনছঃমোমেন ডিপ্লোম্যাসির পালে ব্রিটেন ও ইইউ`র হাওয়া

| ২০:৪৬, মার্চ ১১, ২০১৯

সৈয়দ শাহ সেলিম আহমেদ । লন্ডন । ১১ মার্চ । ২০১৯। বিএনপি গত ১০ বছর ধরে বলা যায় একচ্ছত্রভাবে ইউরোপিয় ইউনিয়ন কমিশন এবং ইউরোপিয় ইউনিয়ন কাউন্সিল,  পার্লামেন্ট নিজেদের পক্ষে ভাগিয়ে নিয়ে দখল করে নিয়েছিলো। বিএনপি বিশেষ করে ব্রাসেলস ও লন্ডন বিএনপির যৌথ প্রচার কর্ম কৌশলের কাছে ব্রাসেলসের বাংলাদেশ দূতাবাসতো বটেই, সরকার সমর্থক কেউই খুব একটা সুবিধা করতে পারছিলেননা। এক্ষেত্রে একের পর এক বিএনপি ক্ষমতাসীন সরকারের বিরুদ্ধে ইউরোপিয় ইউনিয়ন কমিশন এবং পার্লামেন্টকে কাজে লাগিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের সরকারকে ইউরোপ এবং বিহির্বিশ্বে বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে রেখেছিলো। ইউরোপে বিএনপির পালে য্যুতসই হাওয়া দিয়ে যাচ্ছিলো লন্ডনের শক্তিশালি বিএনপি নেতৃত্ব।

 

ইউরোপের শক্তিশালী এবং প্রভাবশালী দুই প্রতিষ্ঠান কমিশন ও কাউন্সিলের একের পর এক সরকারের বিভিন্ন কর্মকান্ডের প্রচুর সমালোচনা আর রিজ্যুলেশনের বিরুদ্ধে লন্ডনের দক্ষিণ এশিয়া ডেস্কও নিজেদের স্বার্থের প্রতিকূলে গিয়ে দক্ষিণ এশিয়া ডিপ্লোম্যাসিতে অনেকটাই নিস্তেজ এক ভুমিকায় অবতীর্ণ ছিলো। নানাবিধ কারণে লন্ডনের পক্ষে ইউরোপের স্বার্থের প্রতিকূলে দক্ষিণ এশিয়ায়  অবস্থান নেয়াটা ছিলো এক ধরনের চ্যালেঞ্জ এবং বিশেষ করে ব্রেক্সিট নেগোসিয়েশন চলাকালিন সময়ে সেটা ছিলো আরো কঠিণ এবং বিব্রতকর এক পরিস্থিতি।

কিন্তু ২০১৮ সালের বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচনের নানাবিধ খেলার বিপরীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একেবারে শেষ চাল আন্তর্জাতিক কূটনীতি ও অর্থনীতিতে খ্যাতিমান অধ্যাপক চৌকস ডঃ এ কে আব্দুল মোমেনের নাটকীয়ভাবে পর্দার আড়াল থেকে সিনারিও সামনে এনে নতুন ডিপ্লোম্যাসি সাজালেন। ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে খ্যাতিমান এবং আন্তর্জাতিক নেগোসিয়েশন, দ্যুতিয়ালি, সমঝোতা আর ম্যানেজম্যান্টের দক্ষ ট্র্যাক রেকর্ডের অধিকারি মোমেন ডিপ্লোম্যাসির দ্রুতগামি সুপারসনিক ট্রেনের যাত্রী পেন্টাগন, নয়াদিল্লি, হোয়াইট হল, সৌদি আরব, ইউরোপিয় কমিশন ও কাউন্সিল হয়ে গেলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনের রাজনীতি, অর্থনীতি, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ঢাকার অবস্থান একেবারে সূক্ষন সমমেরুতে অবস্থান করে, যা মোমেন ডিপ্লোম্যাসির বাজিমাত শেখ হাসিনার সরকার নাটকীয় সব জাল উতড়ে যান।

 

ইউরোপ এবং ব্রিটেন এখন আর ঢাকার রাজনীতি এবং অর্থনীতি আর সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে রাখ-ঢাক ছাড়াই দ্বিধাহীনভাবে প্রকাশ্যে অবস্থান নিতে শুরু করেছে। মোমেন ডিপ্লোম্যাসির ক্যারিশম্যাটিক জাদুর বাক্সে ইতোমধ্যেই ইউরোপিয় ইউনিয়ন কমিশন, ইউরোপিয় ইউনিয়ন কাউন্সিল এবং ইউরোপিয় পার্লামেন্ট প্রবেশ করেছেন, যার ফলশ্রুতিতে বিএনপি জামায়াতের ঐক্যবদ্ধ ও বিলিয়ন ইউরোর ইনভেস্টম্যান্টের বিগত ১০ বছরের প্রতিষ্ঠিত দূর্গে মোমেন ডিপ্লোম্যাসি হানা দিয়ে তছনছ শুধু নয়, ইউরোপিয় পার্লামেন্ট, ইউরোপিয় কমিশন, ইউরোপিয় কাউন্সিল তাদের নিজেদের তৈরি শেখ হাসিনা বিরোধী রেজুলেশনের উপর পা দিয়ে ডোনাল্ড টাস্ক এবং ঝংকারের চিঠি নিয়ে ঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে দুই শক্তিশালি প্রতিষ্ঠানে সরকার প্রধানকে আনুষ্ঠানিকভাবে আমন্ত্রণ জানিয়েছে। জানাগেছে, এই দুই প্রতিষ্ঠান শেখ হাসিনার আগামীর সফরে ইউরোপের ইতিহাসে সব চাইতে ঔজ্জ্বল্যমন্ডিত এক রিসেপশনের পরিকল্পণা রয়েছে বলে কূটনৈতিক একটি সূত্র অবহিত হয়েছেন।

ইউরোপের এমন অবস্থানের ইউ টার্নের পর পরই এক সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রিটেনও ঢাকার রাজনীতি ও অর্থনীতি এবং কূটনীতিতে তাদের অবস্থান আরেকটু পরিষ্কার করেই মোমেন ডিপ্লোম্যাসির পাশেই দাড়িয়েছে। শুধু এমন অবস্থানে নয়, ব্রিটেন আরো এক ধাপ এগিয়ে সন্ত্রাসবাদের নেতৃত্বর পলিসিতে ট্র্যাক রেকর্ডের অধিকারি এমন এক ডিপ্লোম্যাটকে (রিচার্ড ডিকসনকে) ঢাকায় হাই কমিশনার হিসেবে পাঠিয়েছে। ব্রিটেন ঢাকাকে ক্লিয়ার বার্তা দিলো, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী অবস্থানে মোমেন ডিপ্লোম্যাসি এবং শেখ হাসিনার সরকারের সাথে ব্রিটেন এক কাতারে অবস্থান করে কাজ করবে। বিদায়ী রাষ্ট্রদূত অ্যালিসন ব্লেক মাত্র দুই সপ্তাহের কম সময় আগে ঢাকার সাথে ব্রিটেনের নানা ক্ষেত্রে সহযোগিতা বৃদ্ধির কথা জানিয়েছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করে। সে সময়ই ব্রিটেন সিগন্যাল দিয়েছিলো মোমেন ডিপ্লোম্যাসির সাথে ব্রিটেন এক কাতারে দাঁড়িয়ে কাজ করতে চায়।

 

ইউরোপ ও ব্রিটেন জয়ের অব্যাহতি আগেই  ডঃ আবদুল মোমেন ভারত জয় এবং এর পর পরই তার পুরনো মধ্যপ্রাচ্যের সম্পর্ক জালাই করে নেন। আরব আমিরাত সপ্তাহান্তের মধ্যে দুই দুইবার সফরের মধ্য দিয়ে ঢাকায় মধ্যপ্রাচ্য বিনিয়োগের ফ্ল্যাড লাইন চালুর দ্যুতিয়ালি, যার ফলে সৌদি আরবের কোন মন্ত্রী পর্যায়ের দুইজনের নেতৃত্বে বিনিয়োগ প্রতিনিধি দলের ঢাকা সফর এবং আরব আমিরাতে সরকার প্রধানের সফরের মধ্য দিয়ে সৌদির পথ ধরে আরব আমিরাত, দুবাই কুয়েত ঢাকায় বিনিয়োগের পাইপ লাইনে নিয়ে আসার পথ উম্মুক্তের সূচনা হয়।

 

(চলবে)

 

১১ মার্চ ২০১৯। লন্ডন ।

Comments are closed.







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!