`প্রধানমন্ত্রী বলেছেন,দ্বীনি শিক্ষা ছাড়া মানুষ গড়া যাবেনা`: লন্ডনে মোহাদ্দিস তোফাজ্জল হক হবিগঞ্জী

প্রকাশিত: ১১:৫৬ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৪, ২০১৯ | আপডেট: ৩:০৫:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৬, ২০১৯

লন্ডন টাইমস । ১৫ জুলাই, ২০১৯। লন্ডন। দুদিনব্যাপী পবিত্র কোরআন হাফেজ ও বোখারী শরীফের খতমের জলসা, সনদ ও বার্ষিক পুরুষ্কার বিতরনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে লন্ডন ইসলামিক স্কুল। পূর্ব লন্ডনের ঐতিহ্যবাহী ফোর্ড স্কয়ার মসজিদে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ওয়াজ নসিহত ও সনদ প্রদান করেন বাংলাদেশ থেকে আগত জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের শীর্ষ নেতা, প্রখ্যাত মোফাসসিরে কোরআন আল্লামা হযরত মাওলানা তোফাজ্জল হক হবিগঞ্জী।

লন্ডন ইসলামিক স্কুল থেকে শনিবার এবছর ৬জন কোরআনে হাফেজ হিসেবে সনদ ও পাগড়ী পান। রোববার  দ্বিতীয় দিনে দুইজন একই স্কুল থেকে হাদিস শাস্রের বিশুদ্ধ গ্রন্থ বোখারী শরীফের শেষ দারসের মধ্য দিয়ে শায়েখ হযরত মাওলানা তোফাজ্জল হক হবিগঞ্জীর মাধ্যমে পাগড়ী ও বোখারী সনদ প্রাপ্ত হন।

 

এছাড়াও স্কুলের বিভিন্ন ক্লাসের কৃতিত্বধারী ছাত্রদের মধ্যেও এওয়ার্ড তুলে দেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক, প্রিন্সিপ্যাল সহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ।

দুইদিনব্যাপী সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন আল্লামা মাওলানা শামসুল ইসলাম।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে হযরত মাওলানা তোফাজ্জল হক হবিগঞ্জী বলেন, নিজে, পরিবার পরিজন সহ সমাজের সকল ছেলে মেয়ে দুনিয়া ও আখেরাতে বাচার জন্য একমাত্র পথ হলো আল্লাহ রাসূলের বাতানো পথ। রাসূলের সুন্নত আকড়ে  দ্বীনি আমল করে জিন্দেগী পরিচালিত করলে ঘরে বাইরে শান্তি থাকবে।

 

তিনি বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী সকল সরকারি অফিসার ও আলেম উলামাদের সাথে আলোচনার সময়ে বলেছেন, দ্বীনি শিক্ষা ছাড়া সঠিকভাবে শিক্ষা দেয়া যায়না, সন্তানও মানুষ করা যায়না। তিনি বলেন, একথা শুধু আমরা বলিনা, কওমী মাদ্রাসার সাথে বৈঠকের সময়ে প্রধানমন্ত্রী নিজে বলেছেন, সকল মন্ত্রী ও কর্তাদের উপদেশ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কওমী দেওবন্দীদের শহীদের স্রোতে  ভারত থেকে ব্রিটিশদের খেদিয়ে ভারত স্বাধীন করেছে। সেই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। আজ কওমী দেওবন্দী আলেম উলামারা ব্রিটিশদের মাটিতে কোরআন হাদীস শিক্ষা দিতেছেন আমাদের ছেলে মেয়েদের।

Image may contain: 3 people, people sitting

শায়েখ আরো বলেন, কোরআন হাদীসের আলোকে শিক্ষায়  ছাত্র ছাত্রীরা বিপথগামী, ড্রাগস, নেশা, অবৈধ হিংসা, খুন খারাবী করেনা।

 

উপস্থিত মুসল্লীদের সামনে এর আগে মাদ্রাসা ও স্কুলের প্রিন্সিপ্যাল বার্ষিক রিপোর্ট উত্থাপন করেন এবং আরো সাহায্য ও সাপোর্টের আশা প্রকাশ করলে মুসল্লীদের মধ্য থেকে ব্যাপক সাড়া পাওয়া যায়। উল্লেখ্য সম্প্রতি ৬ মিলিয়ন পাউন্ড ব্যায়ে মসজিদ ও স্কুলের নতুন ভবনের কাজ প্রায় সমাপ্ত হয়েছে। আরো ২ মিলিয়ন পাউন্ড এখনো প্রয়োজন থাকায়  বাকি কাজ অসমাপ্ত রয়ে গেছে, যা সমাপ্তির পথে। সেজন্য সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন।