বরিস জনসনের কেবিনেটে ফিরছেন লিজ ট্রুস, নিকি মর্গান, এশার ম্যাকভী, প্রীতি প্যাটেল

প্রকাশিত: 11:24 PM, July 19, 2019 | আপডেট: 11:01:PM, July 21, 2019

সৈয়দ শাহ সেলিম আহমেদ। লন্ডন টাইমস । ২০ জুলাই, ২০১৯ । আর মাত্র ২ দিন বাকী। কনজারভেটিভ সদস্যদের ভোটের ফলাফল জানতে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, বরিস জনসনই ব্রিটেনের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন। অধিকাংশ টোরি সাংসদ, কাউন্সিলর, দলীয় মেম্বারদের সমর্থন রয়েছে বরিস জনসনের উপর। সেক্ষেত্রে আগামী বুধবারই দুপুরের পার্লামেন্টারি সেশন হচ্ছে টেরেজা মে শেষ দিন।

 

২৩শে জুলাই কনজারভেটিভ দলের লিডারশিপ ফলাফল প্রকাশ করা হবে। নিয়ম অনুযায়ী পরদিনই নতুন প্রাইম মিনিস্টার ডাউনিং ষ্ট্রীটে ঢুকবেন।

 

বরিস জনসনের ক্যাম্পেইন টিম আর ব্যাক বরিস সূত্রে জানাগেছে, তারা ইতোমধ্যেই জনসনের কেবিনেট নিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছেন। ইতোমধ্যেই গতরাতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্র্যাম্প টেলিফোনে বরিস জনসনের সাথে কথা বলেছেন। ওভাল অফিসে সাংবাদিকদের কাছে আলাপের সময় ডোনাল্ড ট্র্যাম্প নিজেই এই তথ্য জানিয়ে আবারও জনসনের প্রতি তার সমর্থন প্রকাশ করেন।

 

জানাগেছে, লিজ ট্রস, ট্যালেন্টেড নিক মর্গান, এশার ম্যাকভী, প্রীতি প্যাটেল  বরিস জনসনের কেবিনেটে সিনিয়র পোষ্ট পেতে যাচ্ছেন। বরিস জনসন লিজ ট্রুস এবং নিকি মর্গানকে কেবিনেটে নিয়ে আসার ব্যাপারে ইতোমধ্যেই তার টিমের সাথে সম্মত হয়েছেন। ম্যাকভী  প্রীতি প্যাটেল  দলীয় চেয়ারম্যানের মতো সিনিয়র পদ পেতে পারেন।

 

সাজিদ জাভিদ, মাইকেল গোভ কেবিনেটে থাকছেন। বরিস জনসনের টিম এখন পর্যন্ত ফরেন সেক্রেটারি নিয়ে কাজ শুরু করেননি। ফাইনাল হাস্টিংসে অনেকেই বলাবলি করছিলেন জেরেমি হান্ট ফরেন সেক্রেটারি ্ইরাতেবে থাকছেন। হাস্টিংসে বরিস জনসন ফরেন অফিসের কাজের ভুয়সী প্রশংসাও করেছেন। সিটি হলে মুনীরা মির্জাকে আবারো ফিরিয়ে আনা হতে পারে-জনসন যখন লন্ডন মেয়র ছিলেন, মুনীরা তখন সিটি হলে ডেপুটি ছিলেন।

 

এদিকে ডেইলি মেইল সূত্রে জানা গেছে, গার্ল ফ্রেন্ড ক্যারি সিমন্ড লো-প্রোফাইল পছন্দ করছেন। তবে বরিস জনসন চাইলে তিনি সব ধরনের সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে তিনি লো-প্রোফাইলে থাকতে চান বলে মেইলের কাছে জানিয়েছেন।