টেকনাফে যুবলীগ নেতা ওমর হত্যায় জড়িত দুই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী বন্দুকযুদ্ধে নিহত

প্রকাশিত: 5:32 AM, August 24, 2019 | আপডেট: 5:33:AM, August 24, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক :

টেকনাফে যুবলীগ নেতা হত্যায় জড়িত দুই রোহিঙ্গা  সন্ত্রাসী পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে।নিহতরা হচ্ছে জাদিমুরা ক্যাম্পের শব্বির আহমদ পুত্র মোঃ শাহ ও আবদুল আজিজের পুত্র আবদুল শুক্কুর। ঘটনাস্থল তল্লাশী করে ২ টি এলজি (আগ্নেয়াস্ত্র), ৯টি শর্টগানের তাজা কার্তুজ ও ১২ রাউন্ড কার্তুজের খোসা উদ্ধার করা হয়।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) দিনগত রাত দেড়টার দিকে টেকনাফ উপজেলার জাদিমুরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বন্ধুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ প্রদীপ কুমার দাস জানান,  টেকনাফ থানার যুবলীগ নেতা ওমর ফারুক হত্যা  মামলার পলাতক আসামীরা জাদিমুড়া পাহাড়ের পাদদেশে  অবস্থান করার সংবাদে রাত দেড় টার দিকে ওই স্থানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় আসামিরা পুলিশের উপস্থিত টের পেয়ে এলোপাতারি গুলি করতে থাকে। আসামিদের ছুঁড়া গুলিতে পুলিশ  সদস্য এস আই মনসুর, এ এস আই জামাল ও কন্সটেবল লিটন গুলিবিদ্ধ হলে জীবন ও সরকারি মালামাল রক্ষার্থে পুলিশও ৪০ রাউন্ড গুলি করে।  উভয় পক্ষের গোলাগুলি তে যুবলীগ নেতা হত্যা মামলার আসামি মোঃশাহ ও শুক্কুর গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়।

ঘটনাস্থলে তল্লাশী করে ২ টি এলজি (আগ্নেয়াস্ত্র), ৯টি শর্টগানের তাজা কার্তুজ ও ১২ রাউন্ড কার্তুজের খোসা পাওয়া যায়।  পরে গুরুতর আহত গুলিবিদ্ধ  মোঃশাহ ও শুক্কুরকে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাহাদের কে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরন করেন। পরবর্তীতে তাহাদেরকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করেন।

ওসি আরো জানান, এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে এবং এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার রাতে একদল রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি ওমর ফারুক কে গুলি করে হত্যা করে।