চলে গেলেন অরুণ জেটলি,সুষমা ধাক্কার মধ্যেই ফের শোক বিজেপিতে

প্রকাশিত: 7:22 AM, August 24, 2019 | আপডেট: 7:22:AM, August 24, 2019

লন্ডন টাইমস ডেস্ক : প্রয়াত প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর। শনিবার দিল্লির এইমস হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। এ দিন সকালে শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা নিয়ে এইমসে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। কার্ডিওলজি বিভাগে চিকিৎসা চলছিল তাঁর। সন্ধের পরই তাঁকে দেখতে হাসপাতালে যান  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন।

গত দু’বছর ধরেই অসুস্থ ছিলেন অরুণ জেটলি। গত বছর তিন মাসের জন্য জনসমক্ষে সে ভাবে দেখাই যায়নি তাঁকে। পরে জানা গিয়েছিল, কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট হয়েছিল তাঁর। দীর্ঘদিন চিকিৎসার জন্য আমেরিকায় ছিলেন তিনি। সে সময় অস্থায়ী ভাবে অর্থমন্ত্রকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েলকে। তিনিই অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট পেশ করেন। লোকসভা নির্বাচনের প্রচারেও অংশ নেননি অরুণ জেটলি।

কয়েকদিন আগেই চলে গিয়েছেন প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। সেই মৃত্যুতে শোকের আবহ বিজেপিতে। এর মধ্যেই ফের শোকের খবর এল এইমস থেকে। গোটা দিন ধরে জেটিল আরোগ্য কামনা মিথ্যা হয়ে গেল। চিকিৎসকরা জানিয়ে দিলেন অরুণ জেটলি আর নেই।

ডাক্তাররা আগেই জানিয়েছেন, তিনি ‘সফ্ট টিস্যু সার্কোমা’য় আক্রান্ত। এটি একটি ‘রেয়ার ভ্যারাইটি ক্যানসার’।  এটিকে অ্যাগ্রেসিভ ক্যানসার বলা হয়।  মূলত ফুসফুস এবং লিভারে ছড়িয়ে যায় খুব দ্রুত।  লো গ্রেড, ইন্টারমিডিয়েট গ্রেড, হাই গ্রেড এই তিনটি গ্রেড থাকে ক্যান্সারের ক্ষেত্রে।  স্বাভাবিক ভাবেই লো-গ্রেড হলে লেস অ্যাগ্রেসিভ হয় , আর হাই হলে ঠিক তার উল্টোটা।  সাধারণত রক্তের মাধ্যমে ছড়ায় এই ক্যানসার।  তাই খুব কম সময়েই ফুসফুস এবং লিভারে ছড়াতে পারে এই মারণরোগ।

হাসপাতালে ভর্তি করার পরেই চিকিৎসকার দেখেন ফুসফুসে জল জমে গিয়েছে জেটলির। এর পরেই তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। মেডিক্যাল টিমও গঠন করা হয়। কিন্তু একটা সময়ের পরে সব চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যায়।