কিছুই করেননি এখনো, অথচ প্রজেক্টের ৫৭ কোটি টাকা খেয়ে ফেলেছেন

প্রকাশিত: ১:২৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯ | আপডেট: ১:২৯:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯

লন্ডন রিপোর্টার্স ইউনিটি। ঢাকা। সহযোগীতায় রাশেদুল হাসান, ঢাকা। প্রজেক্টের কাজ এখন পর্যন্ত শুরু করা দূরে থাকুক, কোন কাজই তারা করেননি। অথচ প্রজেক্টের জন্য আড়াই কোটি টাকায় ৫টি কার, আরো পাচটি ভাড়া বাবত ১০ লাখ করে মাসে খরচ, বিদেশে প্রশিক্ষণ ও কাজ শেখার নামে সফর, ঘন ঘন বিদেশ সফর প্রজেক্ট এর নাম ভাঙ্গিয়ে-১৪ মাস আগে প্রকল্প শুরু করার কথা থাকলেও সংসদীয় কমিটির সভায় পরিবেশ, বন ও জলবায়ূ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য প্রকল্পের ১.৫ হাজার কোটি টাকার এই প্রকল্পের ৫৭ কোটি টাকাই তারা খরচ করে ফেলেছেন।

সংসদীয় কমিটির সভায় তাদের জিজ্ঞাসা করলে তাদের কাছ থেকে কোন সদুত্তরও নেই।

পার্লামেন্টারি ষ্ট্যান্ডিং কমিটির সভায় তারা জানান কোন উত্তর নেই কিন্তু কেবল অনাকাঙ্ক্ষিত দেরি হয়েছে মাত্র।

৫ বছরের এই প্রকল্পের সাথে জড়িত কর্তা ব্যক্তিদের কাছ থেকে এর কোন ব্যাখ্যাও নেই। শুধু জানান, প্রকল্প এখনো তারা শুরুই করতে পারেননি তবে তৈরি হচ্ছে। বিদেশে গিয়ে খরচের ব্যাপারে বলেন, তারা প্রকল্প নিয়ে অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য গিয়েছিলেন। এমনকি তারা নেপালেও গিয়েছিলেন অভিজ্ঞতার জন্য স্বীকারও করেন।

জলবায়ূর প্রভাব ও চ্যালেঞ্জ শীর্ষক সেমিনারও বিদেশে করেছেন কিন্তু কেন? উত্তর নেই।

 

জানা গেছে বাংলাদেশের বনাঞ্চল এলাকার মানুষের জীবন মান উন্নয়ন ও প্রায় ৪০ হাজার মানুষের উপকারের লক্ষ্যে বিশ্বব্যাংকের অনুদানে ১২ কোটি সহ জনগনের ট্যাক্সের টাকায় বাকী টাকা যোগানের মাধ্যমে জুলাই মাসে ৫  বছর মেয়াদী এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। প্রকল্পের আওতায় ৬০০ গ্রামে জমিতে ৭৬হাজার হেক্টর জমিতে গাছ লাগানোর মাধ্যমে ৪০ হাজার জনগনকে সেবা দান করার সুযোগ করাই উদ্দেশ্য। কিন্তু প্রকল্প কাজ শুরু না করেই নানান বাহানায় প্রকল্পের অর্ধেকের বেশী টাকাই এখন প্রকল্প কর্তাদের পকেটে চলে গেছে।

এই প্রতিবেদকের কাছে পার্লামেন্টারি স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ার সাবের হোসেন চৌধুরী এমপি প্রকল্প শুরু না করেই ৫৭ কোটি টাকা খরচের বিষয়টি নিশ্চিত করেন, ডেইলি স্টা্ওর একই রিপোর্রট প্রকাশ করেছে। পার্লামেন্টারি স্ট্যান্ডিং কমিটি এখন কি সুপারিশ করেছে তা জানা যায়নি।

এই প্রকল্পের পরিচালক জহির উদ্দিন জানান, তারা গাড়ি ক্রয় বাবত ২.৫ কোটি এবং রেন্ট বাবত ১০ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন।

বিদেশে যাওয়ার ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে জানান, ঐগুলো স্টাডি ট্যুর এবং শিক্ষার জন্য, এর বাইরে তিনি কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।