৬২ শতাংশ লেবার ভোটার আগাম নির্বাচনের পক্ষে-প্রধানমন্ত্রীর দৌড়ে জেরেমি করবিনের অবস্থান তৃতীয় স্থানে

প্রকাশিত: ১০:৪৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৯ | আপডেট: ৯:৩৩:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৯

সৈয়দ শাহ সেলিম আহমেদ। লন্ডন রিপোর্টার্স ইউনিটি। লন্ডন। প্রাইম মিনিস্টার বরিস জনসনের পার্লামেন্ট স্থগিতের আদেশকে সুপ্রিম কোর্ট বেআইনি ঘোষণা করার পরে ব্রিটিশ এস্টাবলিশম্যান্ট, জেরেমি করবিনের লেবার দল, লিবডেমের জো সহ ব্রেক্সিট বিরোধী এস্টাবলিশম্যান্ট উতফুল্ল হয়ে হাউজ অব কমন্স সহ সর্বত্র ফেনা তুলতে থাকেন। সবাই মিলে জনসনের পদত্যাগ দাবী করলেও বরিস জনসন যখন আগাম নির্বাচন কিংবা তার বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোট আনার আহবান জানান, তখন লেবার, লিবডেম, এসএনপি সহ ব্রেক্সিট বিরোধী এস্টাবলিশম্যান্ট জনসনের আগাম নির্বাচন কিংবা অনাস্থা প্রস্তাব আনা প্রত্যাখান করেন।

 

এর আগে এটর্নি জেনারেল পার্লামেন্টে বক্তব্য দেয়ার সময় আবেগতাড়িত হয়ে এই পার্লামেন্টকে ধিক্কার দিয়ে বলেন, সময় আসতেছে, ক্রিসমাস আপনারা আটকাতে পারবেননা। ৫২ শতাংশ ভোটারদের মতামতকে এই পার্লামেন্ট কোন মূল্যই দিচ্ছেনা। ডিসগ্রেস এই পার্লামেন্ট বলে এটর্নি জেনারেল মন্তব্য করেন।

Most British voters want a snap poll and think 'the Establishment' is determined to block

এদিকে জনপ্রিয় ট্যাবলয়েড মেইল অনলাইন এক জরিপ পরিচালনা করে। জরিপে দেখা যায়  অধিকাংশ ব্রিটিশ ভোটার আগাম নির্বাচনের শুধু পক্ষে নন, খোদ লেবার দলের ৬২ পার্সেন্ট ভোটার আগাম নির্বাচনের পক্ষে। তারা ব্রেক্সিট ইস্যুতে জেরেমি করবিনের অবস্থান পরিষ্কার না হওয়ায় হতাশ এবং ক্ষুব্ধ।

 

জরিপে ৫৫ পার্সেন্ট ভোটার আগাম নির্বাচনের পক্ষে। মাত্র ২৮ পার্সেন্ট লেবার ভোটার এর বিপক্ষে।

 

বরিস জনসন মনে করেন, আগাম নির্বাচনই পারে কেবল ব্রেক্সিটের ডেডলক খুলে দিতে এবং দেশকে এগিয়ে নেয়ার। তিন বছর ধরে এমপিরা বিতর্কই করে যাচ্ছে। গণভোটের ফলাফলের প্রতি যেমন শ্রদ্ধা দেখাচ্ছেনা, একই সাথে ব্রেক্সিট নিয়ে কোন সিদ্ধান্তেও পৌছতে পারছেনা। এমনি অবস্থায় জনসন জাতিকে মুভ করার জন্য একটা পদক্ষেপ নিচ্ছেন ডু অর ডাই নীতি।

 

মজার ব্যাপার হলো, জরিপে ভোটারদের জিজ্ঞেস করা হয়েছিলো এস্টাবলিশম্যান্ট ব্রেক্সিট আটকে দিতে চায় কিনা-প্রশ্নের জবাবে ৫২ পার্সেন্ট ভোটার সম্মতি প্রকাশ করেন, ২৮ পার্সেন্ট ভোটার দ্বিমত পোষণ করেন, ২০ পার্সেন্ট বলেন তারা জানেননা।

 

তবে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে জ্যাকব রিস মগ-এর সাংবিধানিক ক্যু এর ব্যাপারে ৩২ পার্সেন্ট একমত হলেও ৬২ শতাংশ মনে করেন জনসনের উচিত রানীর কাছে দুঃখ প্রকাশ করা।

 

কিন্তু জরিপে প্রধানমন্ত্রীর স্ট্র্যাটেজিক এডভাইজর ডোমিনিক কমিংস এবং এটর্নি জেনারেল জেফরি কক্সকে  বরখাস্তের ব্যাপারে মতামত দিয়েছেন। তারপরেও মোটাদাগের জরিপে বলা হয়েছে, ৫৩ পার্সেন্ট এতে করে(পার্লামেন্ট আহবান ভাল বললেও) ব্রেক্সিট এর সমাধান হয়েছে বলে মনে করেননা, ৩২ শতাংশ মনে করেন ভালো হয়েছে।

The Mail poll asked voters if they believe there should be an early general election with 55 per cent saying yes

সংসদ অধিবেশনের অন্যান্য ডেভেলপম্যান্ট-

০১) ডাউনিং ষ্ট্রীট ইঙ্গিত দিয়েছে, পার্লামেন্ট ফের স্থগিত হতে পারে

০২) জেফরি কক্স পার্লামেন্টকে ডেড বলে অভিহিত করেছেন

০৩) রিমেইনর এমপিরা আগামী সপ্তাহে ফের নতুন আইন পাশ করতে পারে, জনসনকে ব্রেক্সিট ডিলে করতে বাধ্য করার জন্য

০৪) মার্গারেট বেকেট নিজেই ঘোষণা করেছেন, তিনি কেয়ার টেকার প্রাইম মিনিস্টার হিসেবে কাজ করতে সম্মত-যাতে ৩১ অক্টোবর ব্রেক্সিট স্থগিত করা যায়

০৫) কনজারভেটিভ কনফারেন্স নির্ধারিত শিডিউল অনুযায়ী মানচেস্টারে অনুষ্ঠিত হবে

০৬) নাইজেল ফারাজ জানিয়েছেন, টোরিদের জয়ের জন্য  ব্রেক্সিট পার্টি ব্রেক্সিট করার জন্য সহযোগীতা করতে প্রস্তুত

At first glance, the Survation poll is yet another blow to Boris Johnson’s standing. The public disapproval of his Government over the controversial suspension of Parliament could not be clearer

সর্বশেষ জরিপে দেখা যায়, কনজারভেটিভ দল লেবার দলের চেয়ে ২৭ পার্সেন্টে এগিয়ে। সুপ্রিম কোর্টের রায় এবং পার্লামেন্ট স্থগিত সত্যেও  জেরেমি করবিনের চেয়ে বরিস জনসনের জনপ্রিয়তা দ্বিগুণ বেড়েছে।

জরিপে বেস্ট প্রাইম মিনিস্টার হিসেবে ৪১ পার্সেন্ট জনসনকে, ২১ পার্সেন্ট জো সুইনসন, ১৮ পার্সেন্ট জেরেমি করবিনকে বেছে নিয়েছেন।

 

উল্লেখ্য, ৪৩ পার্সেন্ট ভোটার মনে করেন সুপ্রিম কোর্টের রায়, জিনা মিলার, জনমেজর সহ রিমেইনরদের মুভ মূলত ব্রেক্সিট স্টপ করার  জন্য।