ব্রিটিশ চ্যারিটি দি ওয়ান পাউন্ড হসপিটালে ৬০০০ পাউন্ডের চেক প্রদান

প্রকাশিত: ১২:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৯ | আপডেট: ৯:২৫:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৯

পোর্টসমাউথের বাকল্যান্ড কমিউনিটি সেন্টারে ব্রিটিশ চ্যারিটি দি ওয়ান পাউন্ড হসপিটালের এক আপডেট ও মত বিনিময় সভা পোর্টসমাউথের চীফ কোঅর্ডিনেটর মো. ফরমুজ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। রবিবার ফাউন্ডার মেম্বার মো. সামসুল ইসলামের কোরআন তেলাওতের মাধ্যমে এবং ফাউন্ডার মেম্বার জাহানগীর আলম শাহানের পরিচালনায় চ্যারিটি সংস্হার সিইও ডা. শানুর আলী মামুন চ্যারিটির জন্মলগ্ন থেকে আজ পর্যন্ত চ্যারিটির কার্যাবলীর বিবরন ও সংক্ষিপ্ত ইতিহাস পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে তুলে ধরেন। শুরু থেকেই পোর্টসমাউথবাসীর সহযোগীতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এই সংস্হা আপনাদের অব্যাহত সহযোগীতা ও সাহায্য কামনা করছে।


আপনারা জেনে খুশী হবেন যে বর্তমানে এই সংস্হায় আরো বেশ গুনীজন সম্পৃক্ত হয়েছেন এবং এর বাস্তবায়নে বেশ কয়েকজন হৃদয়বান দানশীল ব্যাক্তিবর্গ এগিয়ে এসেছেন। জন্মসুত্রে বিশ্বনাথের অধিবাসী ইংল্যান্ডের চেলটেনাম প্রবাসী ব্যবসায়ী মো. আলী আশরাফ হাসপাতাল প্রতিষ্ঠায় ৬০ শতক ভূমি দান করেছেন। বাকী প্রায় ৭৫ শতক জাগা ক্রয়ের জন্য ১৩০জন প্রবাসীর প্রত্যেকেই এক হাজার পাউন্ড করে দানের শুধু প্রতিশ্রুতিই নয় অনেকেই হসপিটাল একাউন্টে জমা করেছেন। হসপিটালের পরবর্তি ডেভেলপমেন্টের জন্য আপনাদের মুক্ত হস্তে দান অতীব জ্বরুরী।

চ্যারিটি সংস্হার অগ্রগতি ও স্বচ্ছতার বিবরন অডিওভিজুয়েলি দেখে উপস্হিত সকলেই অনুপ্রানিত হন। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী মো. সমুজ আলী দশ হাজার পাউন্ড প্রদান করে সংস্হার প্রথম পেট্রন হওয়ার সুযোগ গ্রহন করেন। তিনি বলেন, ” এ রকম একটা মহত কাজে আমি দান করতে পারায় নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি। এর চেয়ে আর ভালো কাজ কি হতে পারে ! আমি যথাসাধ্য এই প্রতিষ্টানের বাস্তবায়নে কাজ করে যাবো। সমাজের ধনবান ব্যাক্তিগন দলমত নির্বিশেষে এগিয়ে আসার জন্যও আবেদন করেন।”

চ্যারিটি সংস্হার ফাউন্ডার মেম্বার ও পোর্টসমাউথ কমিউনিটি নেতা মো. আছাব আলী বলেন, “এ সংস্হার অগ্রগতি ও স্বচ্ছতা দেখে আমি মুগ্ধ। এর ফাইনান্সের দায়িত্বে রয়েছেন লন্ডনের সুনামধন্য একাউন্টেন্ট সাবেক স্পিকার লন্ডন টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলর মো. আয়াজ মিয়া। বাংলাদেশের দায়িত্বে রয়েছেন অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব সৎ ও নিষ্ঠাবান ব্যাক্তি মো. মঈন উদ্দিন। তাছাড়াও কয়েকজন ডাক্তার, আইনজীবী, মেডিয়া ব্যাক্তিত্ব, ইমাম ও শিক্ষাবিদের সমন্বয়ে একটা চমৎকার টিম নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। আমি আপনাদেরকে আকুল আবেদন জানাই এই প্রতিষ্টানের বাস্তবায়নে দলমত নির্বিশেষে এগিয়ে আসার জন্য। ”
সভাপতির বক্তব্যে পোর্টসমাউথের চীফ কোঅর্ডিনেটর মো. ফরমুজ আলী বলেন,”এই চ্যারিটির কার্যক্রমে জড়িত থাকতে পারায় আমি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি। নি:সন্দেহে এটা একটা মহত কাজ। এ কাজ আমাদের নাজাতের কারন হতে পারে।আপনাদের সহযোগীতার জন্য আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এবং আবেদন করছি সাহায্যের হাত সম্প্রসারণ করার জন্য। আর আজকের সভায় এসে এ সভাকে সফল করার জন্য ধন্যবাদ জানাই। বিশেষ করে ধন্যবাদ জানাই আমাদের সম্মানিত পেট্রন মো. সমুজ আলী সাহেব যিনি দশ হাজার পাউন্ড চ্যারিটিতে দাল করে ইতিহাস গড়লেন। পরিশেষে আমি আপনাদের কাছে অবহত করছি, আমার বয়স হয়েছে এবং শারীরিক অসুস্হতার জন্য চীফ কোঅর্ডিনেটর হিসাবে যে সময় ও শ্রম দেওয়ার কথা তা সম্ভব হচ্ছে না। আর তাই এই সভা থেকে কেউ একজন এ দায়িত্ব নেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।”
ফাউন্ডার মেম্বার মো. সামসুল ইসলাম এক হাজার পাউন্ডের চেক হস্তান্তর করে বলেন সময়ের ব্যস্ততার জন্য এ মহত কাজে সময় দিতে না পারায় নিজেকে লজ্জিত মনে করছি। ইনশা আল্লাহ এখন থেকে যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাবো।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংস্হার সাবের ফাইনান্স ডাইরেক্টর রুমাল খান, গসপোর্ট কোঅর্ডিনেটর ও ফাউন্ডার মেম্বার লর্ড লোকমান খান, ফাউন্ডার মেম্বার শাহ এম এ হক, ফাউন্ডার মেম্বার মো. দুলাল আহমদ প্রমুখ।

সভায় ফান্ড রাইজিং এর জন্য গত বছর চ্যারিটি ডিনারের আয়োজন করে ৫১৯ পাউন্ড রেইজ করার জন্য ব্যবসায়ী ও ফাউন্ডার মেম্বার দুলাল আহমদকে সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। পোর্টসমাউথ মুসলিম একাডেমি ও প্যারাডাইজ রেস্টুরেন্টকেও ফান্ড রাইজিং এর জন্য সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।
সভার সকলের সর্বসম্মতিক্রমে জনাব সমুজ আলী সাহেবকে পোর্টসমাউথের চীফ কোঅর্ডিনেটর হিসাবে দায়িত্ব গ্রহনের জন্য অনুরোধ করা হয়।