পূর্বলন্ডনে শহীদ মিয়া ইমার্জেন্সি ক্রু আসার আগেই করোনায় সংক্রমিত হয়ে ঘরেই মারা গেলেন

প্রকাশিত: ১০:০৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০২০ | আপডেট: ১০:০৭:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০২০

লন্ডন টাইমস। সূত্র দ্য সান । করোনার মহামারীতে ব্রিটিশ বাংলাদেশী(৪১) শহীদ মিয়া পূর্ব লন্ডনের বাঙালি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা শেডওয়েলের বার্ণাডো এষ্টেটের নিজ ফ্ল্যাটে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন। গত শনিবার রাতে তিনি তার নিজ ফ্ল্যাটে মারা যান।

তার অবস্থার অবনতি হলে তার স্ত্রী ৯৯৯ অ্যাম্বুলেন্স- ইমার্জেন্সিতে ফোন করলে তারা আসার আগেই ঘরে মারা যান।

এসময় তার স্ত্রীর চিৎকার করে স্বামীর অসহায় অবস্থায় মৃত্যু যন্ত্রণায় সাহায্যের আবেদন আকাশ বাতাস প্রকম্পিত করে তোলে। ট্যবলয়েড দ্য সানে ফ্ল্যাটের বাসিন্দা ভিডিও পোষ্ট করে যে কাউন যে কোন সময় আক্রান্ত হতে পারেন, কেউই নিরাপদ নন- মর্মস্পর্শী পোষ্ট দিয়ে সবার সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

ফ্ল্যাটের প্রতিবেশী নিজ উদ্যোগে ফ্ল্যাট ডিসইনফ্যাক্ট করার ব্যবস্থা করেন। বার্ণাডো এস্টেটের বার্ণাডো গার্ডেন্স টাওয়ার হ্যামলেটসের কমিউনিটি হাউজিং পরিচালনা করে থাকে।

এই ফ্ল্যাটের মূল এন্ট্রান্স বিগত এক বছরের বেশী সময় ধরে অরক্ষিত থাকার পরেও বার বার জানানোর পরেও এখন পর্যন্ত মূল এন্ট্রান্স গেইট (দরজা) লক সিস্টেম ঠিক করা হয়নি, অভিযোগ বাসিন্দাদের।

অবশ্য টাওয়ার হ্যামলেটস কমিউনিটি হাউজিং এর ক্লিনিং টিম পরে এস্টেটে এসে পরিষ্কার এবং ফ্ল্যাটে ডিসইনফেক্ট স্প্রে ছিটিয়ে দেয়।

উল্লেখ্য পূর্ব লন্ডনে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। মসজিদ সহ সকল বড় বড় প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও এখনো লোকজন ঘুরাফেরা করেন সোশ্যাল ডীস্ট্যান্স না মেনেই, যদিও কোন কোন প্রতিষ্ঠানে দাগ দিয়ে দূরত্ব বজায় রেখে শপিং এবং চলাফেরার নির্দেশনা দেয়া আছে।