আপডেট ৩ min আগে ঢাকা, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং, ৩রা কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২৬শে মুহাররম, ১৪৩৯ হিজরী

Breaking News
{"effect":"fade","fontstyle":"Bold","autoplay":"true","timer":4000}

প্রচ্ছদ জাতীয়

Share Button

দুনিয়া কাঁপানো সেই বাণীঃফরগিভ মি..গুড বাই..

| ১৬:০১, জুন ১৬, ২০১৭

লন্ডন টাইমস নিউজঃ লন্ডনের গ্রেনফেল টাওয়ারে যখন আগুন দাউ দাউ করে জ্বলছিলো, ফায়ার ফাইটাররা যখন আগুন নিভাতে আপ্রাণ চেষ্টায়রত, স্বজনদের চিৎকারে পশ্চিম লন্ডনের আকাশ বাতাস যখন ভারি হয়ে আসছিলো, ঠিক তখনি গ্রেনফেল টাওয়ার থেকে সেলফোনের কল্যাণে সেই শেষ অমীয় বাণী- দুনিয়া কাপানো সেই সুর আসলো- আরো একজন স্বজনের মোবাইলে।

মৃত্য অবধারিত। যেখানেই থাকো, যেভাবেই থাকো- আজরাইল আঃ ঠিক সময় মতোই এসে উপস্থিত হবেন। কোন হের ফের হবেনা। কোরআন বলছে, কুল্লু নাফসিম.. জাইকাতিল মাওত..

গ্রেনফেল টাওয়ার থেকে একজন স্বজনের সেলফোনে রিং করলেন শেষ বারের মতো। চতুর্দিকে আগুনের লেলিহান শিখা। সভ্যতার চরম শিখরে অথচ লন্ডনের অভিজাত ও ধনী এলাকা কেনজিংটনের হার্টের মধ্যে অবস্থিত গ্রেনফেল টাওয়ার।বিল্ডিং ভবন নির্মানে ব্রিটিশ কাউন্সিলগুলো কখনো নিরাপত্তা ব্যবস্থার ক্ষেত্রে খুব একটা কার্পন্য করেনা। আধুনিক স্থাপত্যের নান্দনিক শৈলীতে তৈরি গ্রেনফেল টাওয়ার ১৫ মিনিটের আগুনে একেবারে শেষ।ভিতর থেকে একটি আওয়াজ, কান্না বিজড়িত কন্ঠে, কলিজার সবটুকু দরদ দিয়ে স্বজনের কাছে মোবাইলের আওয়াজ বেজে উঠলো- ফরগিভ মি.. এভরি ওয়ান..গুডবাই- এর পর শেষ রানা ইব্রাহিমের সেই চিরচেনা কন্ঠ এই পৃথিবীর মায়া ছেড়ে একেবারে মিলিয়ে গেলো আগুনের লেলিহান শিখায়। সভ্যতা দাঁড়িয়ে দেখলো- গ্রেনফেল জ্বলছে, রানা ইব্রাহিম গুডবাই বলে শেষ বিদায় নিচ্ছে..অসহায়ের মতো আর হ্নদয়ের সবটুকু আবেগ নিয়ে আহ উহ করা ছাড়া আর কিছুই করার ছিলোনা

এই কি নিয়তি.. এভাবেই চলে যাওয়ার জন্য কি লন্ডনের জৌলুসপূণ জীবনে পরিপূর্ণ স্বাদ নেয়ার জন্য এই নগরীতে যারা প্রাণ পন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন- এভাবে অসহায়ভাবে কি নিয়তির কাছে হার মানতেই হবে ?

 

কতোজন এভাবে চলে গেছেন- সে হিসেব সঠিকভাবে কেউ বলতে পারছেন না। সরকারি হিসেবে এখন পর্যন্ত ৩০ জন। এহিসেব যে আরো বাড়বে সন্দেহ নাই।খোদ স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড বলছে, ১০০ ঘর পৌছবেনা। মানেই হলো আরো বাড়বে।স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড আরো বলছে মৃতদেহের শনাক্ত করাটাও আরো কঠিণ ব্যাপার হবে।আধুনিক সভ্যতা কি এখানেও হার মানবে? যাদের স্বজন মৃত্যুর মুখে পতিত হয়েছেন, তাদের লাশের শনাক্তকরনও আজীবন তাদের কাছে রয়ে যাবে অজানা।

কি নিষ্টুর, কি বীভৎস ট্র্যাজেডি- যারা বেচে আছেন, তাদের রয়েছে আরো দুঃসহ স্মৃতি। মৃত্যুর দোয়ার থেকে ফিরে আসা- এক অজানা আতঙ্ক ঘুরে বেড়াবে তাদের সঙ্গে।তারাও তাড়াতাড়ি সুস্থ্য হয়ে উঠুন – কমিউনিটির মিলিত সাহস, সাপোর্ট হউক তাদের নিত্য সঙ্গী।

 

এভাবে যেন কারও মৃত্যু না হয়, আল্লাহ সকলের মঙ্গল করুন।

 

tweet@salim1689

Comments are closed.







পাঠক

Flag Counter



Developed By : ICT SYLHET

Developer : Ashraful Islam

Developer Email : programmerashraful@gmail.com

Developer Phone : +8801737963893

Developer Skype : ashraful.islam625

error: Content is protected !!